বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লালমনিরহাট জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক খায়রুল বাশার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মঙ্গলবার সকালের দিকে কালীগঞ্জের কাকিনা-মহিপুর সড়কের সিরাজুল মার্কেট এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করেন তাঁরা। এ সময় মোটরসাইকেল চালিয়ে আসার সময় এক ব্যক্তির সন্দেহজনক আচরণ দেখে তাঁকে থামতে বলেন। তল্লাশি করে তাঁর সঙ্গে থাকা একটি ব্যাগের ভেতর পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় ৭০ বোতল ফেনসিডিল জব্দ করা হয়। পরে জানা যায় তিনি পুলিশে কর্মরত।

তল্লাশি করে মোটরসাইকেল আরোহীর সঙ্গে থাকা একটি ব্যাগের ভেতর পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় ৭০ বোতল ফেনসিডিল জব্দ করা হয়। পরে জানা যায় তিনি পুলিশে কর্মরত।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম রসুল বলেন, মঙ্গলবার রাত নয়টায় লালমনিরহাট জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক জুয়েল ইসলাম বাদী হয়ে আটক হাইওয়ে পুলিশের কনস্টেবল হ‌ুমায়ূন কবীরের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা করেন। এ মামলায় অভিযুক্ত হ‌ুমায়ূন কবীরকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

হাতীবান্ধা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল হাকিম আটক হ‌ুমায়ূন কবীরের পরিচয় নিশ্চিত করে বলেন, লোকমুখে তাঁর মাদকসহ আটক হওয়ার ঘটনাটি শুনেছেন। ওসি আবদুল হাকিম বলেন, ‘বগুড়া হাইওয়ে পুলিশের এসপি অফিসে এক মাসের গার্ডের ডিউটি করার জন্য কনস্টেবল হ‌ুমায়ূন কবীরকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে বগুড়ার উদ্দেশে তাঁর রওনা হওয়ার কথা। এর মধ্যে কীভাবে এই ঘটনা ঘটল, বুঝতে পারলাম না।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন