বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আজকের সর্বশেষ পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আজ বরিশাল, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কয়েক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। দেশের অন্যত্র আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে। এই মেঘলা আকাশ, থেমে থেমে বৃষ্টির কারণ লঘুচাপ। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট এই লঘুচাপের এখন অধিষ্ঠান তামিলনাড়ুর দিকে। তবে বেশ দুর্বল হয়ে গেছে সেটি। এই লঘুচাপই নিষ্ঠুর করোনায় প্রয়াত শঙ্খ ঘোষের কবিতার মতো হয়তো বলে দিয়েছে—
‘মেঘের কোমল করুণ দুপুর
সূর্যে আঙুল বাড়ালে—
তোমাকে বকব, ভীষণ বকব
আড়ালে’

এই বকুনি খাওয়ার চেয়ে সূর্যের সঙ্গে মাখামাখি থেকে আজ দূরে থাকাকেই শ্রেয়তর মনে করবে আকাশ। তবে মেঘ আর রোদের লুকোচুরি চলবে। আবহাওয়া অফিস বলছে, মেঘলা আবহাওয়ায় রাতের তাপমাত্রা কিছু কমবে বটে, তবে শীত জাঁকিয়ে আসতে আরও দেরি। এর মধ্যে আসছে আরেকটি নিম্নচাপ।

আবহাওয়াবিদ বজলুর রহমান আজ প্রথম আলোকে বলেন, দক্ষিণ আন্দামান সাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ এখন মধ্য আন্দামান সাগর ও এর কাছাকাছি এলাকায় আছে। এটি নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। নিতে পারে ঘূর্ণিঝড়ের আকারও। ঝড় হলে এর নাম হবে ‘জাওয়াদ।’

বেশ কয়েক দিন ধরেই উত্তরের জনপদে ঠান্ডা হাওয়ায় শীত নামছে। গতকাল শনিবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়, ১৩ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ টেকনাফে ৩২ দশমিক ৪। সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে, ২৮ মিলিমিটার।

পরিবেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন