রংপুরে দিনভর কুয়াশার আর কনকনে শীত। আর কতইবা ঘরে থাকা যায়। তাই দুই ভাই সাইকেলে ঘুরতে বেরিয়েছে। আজ সকালে শহরতলীর কেল্লাবন্দ কাচারি এলাকায়
রংপুরে দিনভর কুয়াশার আর কনকনে শীত। আর কতইবা ঘরে থাকা যায়। তাই দুই ভাই সাইকেলে ঘুরতে বেরিয়েছে। আজ সকালে শহরতলীর কেল্লাবন্দ কাচারি এলাকায়ছবি: মঈনুল ইসলাম

রাজধানীতে আজ সোমবার তাপমাত্রা কিছুটা বেড়েছে। এতে শীতের তীব্রতা খানিকটা কমেছে। কুয়াশাও আগের দিনগুলোর মতো অতটা ঘনঘোর হয়ে নেই। রোদের দেখা মিলেছে সকালেই। তবে সারা দেশে আবহাওয়ার তেমন বিশেষ পরিবর্তন হয়নি। দেশের অধিকাংশ এলাকাতেই কনকনে শীত আর গাঢ় কুয়াশা। পঞ্চগড়ে শিশির ঝরেছে বৃষ্টির মতো।

উত্তরাঞ্চলসহ দেশের অনেক এলাকাতেই তীব্র ঠান্ডা। ভারী কুয়াশার পর্দায় ঢেকে আছে আকাশ। রোদের দেখা মিলছে না দুপুর অবধি। আজ সবচেয়ে বেশি শীত পড়েছে উত্তরাঞ্চলে। কয়েক দিন ধরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল সিলেটের শ্রীমঙ্গলে।

আজ সেই রেকর্ড চলে গেছে দেশের উত্তরের সীমান্ত শহর তেঁতুলিয়ায়।
আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে তেঁতুলিয়ায় ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল শ্রীমঙ্গলে সর্বনিম্ন ছিল ৯ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড হয়েছে ফেনী, সীতাকুণ্ড ও খেপুপাড়ায় ২৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বিজ্ঞাপন
default-image

রাজধানীতে আজ উত্তাপ বেড়েছে প্রায় আড়াই ডিগ্রি। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ২৪ দশমিক ৬ ডিগ্রি, গতকাল ছিল ২২ ডিগ্রি। আজ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১২ দশমিক ৮ ডিগ্রি। সকাল ১০টার আগেই আকাশ থেকে কুয়াশা কেটে গিয়ে দেখা গেছে সূর্যের হাসি।

আবহাওয়া বিভাগের আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক জানান, আগামী দুদিন দেশের আবহাওয়ায় বিশেষ পরিবর্তন আসবে না। শীত ও কুয়াশা এখন যেমন আছে তাই থাকতে পারে। উপমহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তার সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। এর প্রভাবেই শৈত্যপ্রবাহ সৃষ্টি হয়। ২৭ ও ২৮ জানুয়ারি আমাদের দেশে এই উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশের প্রভাব পড়বে। এর ফলে সারা দেশে আবার মৃদু শৈত্যপ্রবাহ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

default-image

বৃষ্টির মতো শিশির

আমাদের পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, আজ তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড হয়েছে ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি। তবে এখানে এ বছর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২০ জানুয়ারি ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

পঞ্চগড়ে রাতভর গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির মতো শিশির পড়েছে। সকালে গাছগাছালির লতাপাতা ও পাকা সড়কগুলো দেখাচ্ছিল যেন বৃষ্টিভেজা। অনেক জায়গায় বড় গাছপালার তলায় মাটিও ভেজা ভেজা ছিল। গতকাল রোববার দুপুরের পর থেকেই আকাশে কুয়াশা জমতে শুরু করেছিল। সন্ধ্যার আগেই যেন সন্ধ্যা নেমে এসেছিল। মাত্র ৩-৪ হাত দূরের জিনিসও ভালো দেখা যাচ্ছিল না। বিকেল থেকেই গাড়ি চলছিল হেডলাইট জ্বালিয়ে। তেঁতুলিয়ার দিকে মহাসড়কে আজ সকাল ১০টার দিকেও হেডলাইট জ্বালিয়ে গাড়ি চলেছে। তবে তারপর থেকে কুয়াশা কেটে যেতে থাকে। এরপর একটু একটু করে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে আসে।

তেঁতুলিয়াসহ পঞ্চগড়ের গ্রামাঞ্চলে শীতের তীব্রতায় জীবনযাত্রা মন্থর হয়ে পড়েছে। সকাল-সন্ধ্যায় লোকে আগুন জ্বেলে তার পাশে বসছেন একটু উষ্ণতার জন্য।

বিজ্ঞাপন
পরিবেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন