default-image

প্লাস্টিকের বড় ড্রাম কেটে দুই ভাগ করে পাঁচতলা বাড়ির ছাদে সারিবদ্ধভাবে লাগানো হয়েছে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রজাতির ফলদ গাছ। সেই গাছে ধরেছে কমলা, আঙুর, পেয়ারা, মাল্টা, কমলা, বরইসহ বিভিন্ন প্রজাতির ফল। এ ছাড়া রয়েছে সবজি ও ফুলের গাছও।

ওই ছাদবাগানে রাসায়নিক সারের পরিবর্তে প্রাকৃতিক জৈব সার ও জৈব পদ্ধতিতে তৈরি কীটনাশক ব্যবহার করা হয়। গাছের প্রতি ভালোবাসা ও পরিবারের পুষ্টির চাহিদা মেটাতে এই ফলদ বাগান গড়ে তোলেন গৃহিণী নয়ন রহমান। গত ছয় বছরে তাঁর ছাদবাগান এখন সবুজে সবুজে ছেয়ে গেছে।

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ শহরের হাজীগঞ্জ ওয়াপদারপুল এলাকায় সরদার বাড়ির গৃহিণী নয়ন রহমানের সঙ্গে ছাদে কথা হয় প্রথম আলোর এই প্রতিবেদকের। তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ থেকে স্নাতক পাসের পর তাঁর বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে ছোট পরিসরে গাছ লাগান। ২০১৩ সালের দিকে তিনি বাড়ির দোতলার ছাদে অর্ধশতাধিক ফলদ, সবজি ও ফুলের গাছ লাগান। একপর্যায়ে তিনি ১ হাজার ৮০০ বর্গফুটের পাঁচতলার ছাদে প্রায় ১ হাজার বর্গফুটের ছাদে ফলদ বাগান গড়ে তোলেন। বিভিন্ন জায়গা থেকে বেলে দোআঁশ মাটি ও গোবর পচিয়ে জৈব সার তৈরি করে এসব গাছ তিনি লাগাতে থাকেন। সেখানে শতাধিক প্রজাতির ফলদ গাছ ছাড়াও সবজি ও ফুল গাছ আছে।

বিজ্ঞাপন
মানুষকে ছাদবাগানে আগ্রহী করতে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন স্কুলে বাগান করতে আমরা উৎসাহ দিচ্ছি।
নাহিদা বারিক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, নারায়ণগঞ্জ সদর

গৃহিণী নয়ন রহমান বলেন, ‘বাজারে ফল ও সবজিতে রাসায়নিক কেমিক্যাল ও ফরমালিন থাকে, যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। পরিবারের সবার স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করেই ফলদ গাছ লাগানোর ব্যাপারে আমি উদ্যোগ নিই।’

সরেজমিনে দেখা যায়, গাছে ১০–১৫টি কমলা পেকে আছে। ধরতেই পাকা কমলা খসে পড়ল। পাকিস্তানি ও দেশি আনার ঝুলে আছে। আরও ঝুলে আছে কামরাঙা, মাল্টা, আখ, অড়বরই, সফেদা, আমড়া, আতা, কতবেল, লেবুসহ কয়েক প্রজাতির পেয়ারা ও জাম্বুরা। ফল গাছের মধ্যে আরও রয়েছে লটকন, লেবু, কাগজি লেবু, বাংলালিংক লেবু, চায়নিজ তরমুজ, আম্রপালিসহ শতাধিক প্রজাতির ফলদ গাছ। এ ছাড়া ফুলের মধ্যে রয়েছে গোলাপ, গন্ধরাজ, নয়নতারাসহ বিভিন্ন ফুল। ছাদে চৌবাচ্চা তৈরি করে লাল শাপলাও লাগানো হয়েছে। সবজির মধ্যে লাউ, পুঁইশাক, চালকুমড়া, কাঁচা মরিচ দেখা গেল।

এদিকে এই ছাদবাগান দেখতে অনেকেই ছুটে আসেন। তাঁদের ছাদবাগান করার পরামর্শও দেন নয়ন রহমান। তিনি বলেন, বাগান করতে বড় সমস্যা মাটি ও জৈব সার। তবে ইচ্ছে থাকলে যে কেউ ছাদে বাগান তৈরি করতে পারেন। এতে সহজেই সবুজ প্রকৃতি, বিশুদ্ধ অক্সিজেন ও কীটনাশকমুক্ত টাটকা ফল ও সবজি পাওয়া যায়।

বিজ্ঞাপন

নয়ন আরও বলেন, নিয়মিত গাছে পানি দেওয়া এবং প্রতিবছর দুবার ড্রামের মাটি পাল্টে ও প্রাকৃতিক জৈব সার মিশিয়ে মাটি দেওয়া হয়। গাছে পোকা দেখা দিলে নিমপাতাবাটা মিশ্রণের পানি ছিটিয়ে দেন। প্রয়োজনে উপজেলা কৃষি অফিস থেকে পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেন তিনি।

নয়নের স্বামী ওয়াহিদুর রহমান ডিপিডিসিতে চাকরি করেন। তাঁদের সংসারে দুই সন্তান। পরিবারকে সময় দেওয়ার পর বাকি সময়টা গাছের পরিচর্যা করতে সময় কেটে যায় তাঁর।

ওয়াহিদুর রহমান বলেন, ‘আমি নিজেও গাছের পরিচর্যা করি। বিভিন্ন নার্সারি থেকে গাছের চারা সংগ্রহ করা হয়।’

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম বলেন, গাছ লাগানো ও পরিচর্যার বিষয়ে কৃষি অফিস থেকে পরামর্শ দেওয়া হয়।

জানতে চাইলে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা বারিক প্রথম আলোকে বলেন, ‘মানুষকে ছাদবাগানে আগ্রহী করতে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন স্কুলে বাগান করতে আমরা উৎসাহ দিচ্ছি। সদর উপজেলার আওতাধীন সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিনা মূল্যে গাছ বিতরণ করা হয়।’

মন্তব্য পড়ুন 0