উত্তর আমেরিকার ৫২৯টি প্রজাতির মধ্যে ৩০৩টি প্রজাতির বা ৫৭ শতাংশ প্রজাতির পাখি কমে আসার প্রবণতা দেখা গেছে। ১৯৭০ সালের তুলনায় উত্তর আমেরিকায় পাখির সংখ্যা ৩০০ কোটি কমেছে। তৃণভূমির সঙ্গে সম্পর্কিত প্রজাতিগুলোর পরিণতি সবচেয়ে খারাপ হয়েছে। সবচেয়ে চোখে পড়ে পরিযায়ী পাখির সংখ্যা কমে আসা। ৪১৯ প্রজাতির পরিযায়ী পাখি উত্তর আমেরিকায় কমে এসেছে। গবেষকেরা একই প্রবণতা লক্ষ করেছেন ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ায়।

ওই প্রতিবেদনে পৃথকভাবে বাংলাদেশের পাখি পরিস্থিতির উল্লেখ নেই। তবে প্রতিবেশী দেশ ভারতের পরিসংখ্যান আছে। বলা হচ্ছে, ভারতে ১৪৬ প্রজাতির পাখি কমছে। ৬ প্রজাতির পাখি বাড়ছে না বা কমছে না।

বাংলাদেশে ৭১৫ প্রজাতির পাখি আছে। এর মধ্যে ৫০ প্রজাতির পাখি ঝুঁকির মধ্যে আছে বলে প্রকৃতি সংরক্ষণবিষয়ক সংস্থাগুলোর জোট আইইউসিএনের তালিকায় পাওয়া যাচ্ছে। বাংলাদেশের পাখির ব্যাপারে জানতে চাইলে পাখি বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ বার্ডস ক্লাবের সভাপতি ইনাম আল হক প্রথম আলোকে বলেন, বাংলাদেশ ছোট দেশ, জনসংখ্যা অনেক বেশি। পাখির বাসা বাঁধা, চরে বেড়ানোর মতো জায়গা কম। একমাত্র সুন্দরবন ছাড়া পাখির নির্বিঘ্ন আবাসস্থল নেই।

ডানা মেলে সবখানে

বৈশ্বিকভাবে পাখির অবস্থান প্রায় সর্বব্যাপী। গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলে পাখির প্রজাতির প্রাচুর্য বেশি। সাধারণত বিশ্বের প্রায় সব স্থানে পাখি দেখা যায়। মৌসুমভেদে দুই মেরুতেই পাখি থাকে। মহাসাগরের প্রান্তিকতম অববাহিকায় পাখি আছে। সবচেয়ে অনুর্বর মরুভূমিতে ও বিশ্বের উচ্চতম পর্বতেও পাখি চোখে পড়ে। বিচ্ছুরণ বা সব দিকে ছড়িয়ে পড়ার অনন্য ক্ষমতা প্রাণিকুলে কম দেখা যায়।

কেন পাখি বিপন্ন

গবেষকেরা বিশ্বব্যাপী পাখি কমে যাওয়ার বেশ কিছু কারণ চিহ্নিত করেছেন। অব্যাহতভাবে জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও মাথাপিছু জমি ব্যবহারের কারণে পাখির প্রাথমিক আবাসভূমি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, তার ফল হিসেবে পাখির বৈচিত্র্য কমে যাচ্ছে। শুধু জমির ব্যবহারে পরিবর্তন আসায় বিশ্বে ১৬৫ প্রজাতির পাখি চরম হুমকির মুখে।

ভূমি ব্যবহারে পরিবর্তন আসায় পাখির আবাসভূমি অনেক ক্ষেত্রে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অংশে ভাগ হয়ে পড়েছে। এতে আবাসভূমির মান কমে গেছে। গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলে পাখির প্রজাতি বিলুপ্তির অন্যতম কারণ আবাসভূমি টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়া। বেছে বেছে গাছ কাটা, দাবানল, গৃহপালিত পশুর অতিমাত্রায় চরানো—এসবও পাখির জন্য হুমকি। খাদ্যের জন্য, খেলার জন্য, ব্যবসার জন্য পাখি শিকার হয় প্রায় বিশ্বজুড়ে। সমুদ্রে যাঁরা মাছ ধরেন, তাঁরা অতিরিক্ত শিকার হিসেবে পাখি বেছে নেন।

গবেষণায় ২৩০টি দেশে ও প্রশাসনিক অঞ্চলে ৯৭১টি ভিনদেশি পাখির প্রজাতি দেখা গেছে। কিছু ক্ষেত্রে ভিনদেশি এসব প্রজাতি প্রাকৃতিকভাবে চলে গেছে, কিছু ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃতভাবে এসব প্রজাতি আনা হয়েছে। ভিনদেশি কিছু প্রজাতি স্থানীয় প্রজাতির জন্য হুমকি তৈরি করে। আবার পাখির রোগও পাখির জন্য হুমকি।

অবকাঠামো নির্মাণ, খনিজ তেল উত্তোলন, দূষণ, কৃষি রাসায়নিকও পাখির জন্য নিয়মিত হুমকি হয়ে আছে। এর সঙ্গে নতুন হুমকি হিসেবে দেখা হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবকে। গবেষকেরা বলছেন, বৈশ্বিক টেলিসংযোগ ব্যবসাও পাখির জীবনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গবেষকেরা বলছেন, বৈশ্বিকভাবে ও অনেক অঞ্চলে স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন প্রজাতির পাখির বিপন্নতার কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে। পরিমাণে কম হলেও পাখি সংরক্ষণের উদ্যোগও আছে। এখন দরকার স্থানীয়, অঞ্চলিক ও বৈশ্বিক উদ্যোগ বাড়ানো।

পরিবেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন