বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যাহোক, সব ধরনের খেনির ভেতরে এই টিমটিমেই সবচেয়ে ছোট। শীতের পরিযায়ী বিরল পাখিটির দেখা মেলে দেশের হাওর-বাঁওড়, জলাশয়, ধানখেত ও বিলসহ অন্যান্য ছোট জলাশয়ে। অতিচতুর, সতর্ক, সাবধানী ও বুদ্ধিমান এ পাখিটি চঞ্চলতা ও দ্রুততায় ডাহুককেও হার মানায়। এগুলোর লাজুকতা যেমন আছে, তেমনই আছে ভয় ভয় ভাব। দর্শনীয় ত্রিকোণাকৃতির পুঁচকে লেজের আগাটা শিল্পিত ভঙ্গিতে দোলাতে থাকে সর্বক্ষণ। মাঝেমধ্যে টিমটিমে দু-তিনটি মিলে শরীরে কাদামাটি মেখে কাত-চিত হয়ে শুয়ে রোদে শুকিয়ে পরে গোসল করে। এ পাখি পরজীবী পোকা মারে। নির্জন দুপুর, খুব ভোর ও শেষ বিকেলে নরম ও মিহি স্বরে এ পাখি যখন ডাকে, তখনকার ভাষাটা ‘চর চর, চির চির, চরর চরর’ ধরনের। স্বাভাবিক ওড়ার সময়ে বা ভয় পেয়ে উড়লে ডাকে টিমটিম স্বরে। এ পাখির সবচেয়ে প্রিয় খাবার কালো রঙের ছোট পাখাওয়ালা জলজ কচড়া পোকা।

টিমটিমের ইংরেজি নাম Baillon’s crake. বৈজ্ঞানিক নাম porzana pusilla. দৈর্ঘ্য ১৮-১৯ সেমি। একনজরে পুরুষ পাখিটি লালচে-জলপাই-বাদামি রঙের। ঘাড়, পিঠ ও ডানার উপরিভাগে চমৎকার বিন্যাস সাদা ছিট; বুক, গলা ও চিবুক ছাই-ধূসর রঙের, ডানার তলার বুক ও পেটের উপরিভাগসহ লেজের তলায় আড়াআড়ি সাদা-কালোর পর্যায়ক্রমিক রেখাগুলো শিল্পিত সুন্দর। এই টানগুলো পাখিটির সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে বহু গুণ।

পরিবেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন