default-image

পাবনায় এক সপ্তাহ ধরে মৃদু তাপপ্রবাহ চলছে। গরমে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন খেটে খাওয়া মানুষ। এমন পরিস্থিতিতে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ফলে হাসপাতালে এখন করোনার পাশাপাশি ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের ভিড়।

পাবনা জেনারেল হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, অন্য সময়ের তুলনায় হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা কয়েক গুণ বেড়ে গেছে। আক্রান্তদের মধ্যে শিশু ও বয়স্ক রোগী বেশি। ৩০ শয্যার ডায়রিয়া ওয়ার্ডে এক সপ্তাহে ৪৫৫ জন রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন। প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৬৫ জন রোগী ডায়রিয়ার চিকিৎসা নিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার বেলা দুইটা পর্যন্ত হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ২৬ জন।

অন্যদিকে ৩০ শয্যার শিশু ওয়ার্ডেও রোগীর চাপ বেড়েছে। এক সপ্তাহে চিকিৎসা নিয়েছে প্রায় ৫০০ শিশু। বর্তমানে ভর্তি ৭১ জন। করোনা ইউনিটে রোগী ভর্তি ১৬ জন।

বিজ্ঞাপন

পাবনা জেনারেল হাসপাতালের দুই ভবনের একটির নিচতলায় করোনা ইউনিট। অন্যটির দ্বিতীয় তলায় ডায়রিয়া ও শিশু ইউনিট। গতকাল দুপুরে হাসপাতাল ঘুরে দেখা যায়, করোনা ইউনিটে লোকসমাগম নেই বললেই চলে। তবে শিশু ও ডায়রিয়া ইউনিটে রোগী ও স্বজনদের ভিড়। তিনজন পর্যন্ত শিশুকে রাখা হয়েছে একটি বিছানায়। মেঝেতেও জায়গা হয়েছে বয়স্ক রোগীদের।

চিকিৎসাধীন রোগীদের স্বজনেরা জানান, রোগীর চাপ একটু বাড়লেই চিকিৎসক ও নার্সরা দিশাহারা হয়ে পড়েন। পরামর্শ চাইতে গেলে চিকিৎসকেরা নার্সদের দেখান আবার নার্সরা চিকিৎসকদের দেখান। এতে বিড়ম্বনা তৈরি হয়।

শিশু ওয়ার্ডে দায়িত্বরত চিকিৎসক নূরজাহান আশরাফ বলেন, এই সময়ে গরম ও ঠান্ডার কারণে শিশুদের নিউমোনিয়া, জ্বর ও শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। বড়রাও বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। বড়দেরও বেশি করে পানি পান করতে হবে।

পরিবেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন