default-image

বরগুনার পাথরঘাটায় বিএফডিসি মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে একটি ভোল মাছ ২ লাখ ৪৭ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। আজ শনিবার সকালে পাথরঘাটার মৎস্য আড়তদার ছগির হোসেনের আড়ত থেকে স্থানীয় পাইকার ইউসুফ মিয়া মাছটি কেনেন। মাছটির ওজন ছিল ২২ কেজি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পাথরঘাটা বিএফডিসি মৎস্য আড়তদার সমিতির সদস্য সগির হোসেন বলেন, ‘সুন্দরবন এলাকার জেলে সুকুমার বহাদ্দার আজ সকালে আমাদের আড়তে ভোল মাছটি বিক্রির জন্য নিয়ে আসেন। এ সময় তিনি মাছটির দাম হাঁকেন সাড়ে চার লাখ টাকা। পরে ইউসুফ মিয়া ২২ কেজির ভোল মাছটি ২ লাখ ৪৭ হাজার ৫০০ টাকায় কিনে নেন। সে হিসাবে প্রতি কেজি মাছের দাম পড়েছে ১১ হাজার ২৫০ টাকা।’

ইউসুফ মিয়া বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে এই মাছের ব্যাপক চাহিদা আছে। এ জন্য তিনি এত দাম দিয়ে মাছটি কিনেছেন।

এ ব্যাপারে বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, ‘ভোল মাছ সচরাচর পাওয়া যায় না। বিদেশে এই মাছের চাহিদা আছে বলে শুনেছি।’

পাথরঘাটা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়ন্ত কুমার বলেন, মাছটি বিদেশে রপ্তানি হয়। এর বেশি কিছু তিনি জানাতে পারেননি।

বরিশাল জেলা মৎস্য কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস বলেন, তিনটি মাছের এয়ার ব্লাডার বা বায়ুথলি বেশ দামি। মাছ তিনটি হলো কোরাল, ভোল ও মেদ মাছ। ভোল মাছ গভীর সাগরের মাছ। এখন এই মাছ কম ধরা পড়ে। মাছটি স্বাদে অনন্য। ভোল মাছ বিদেশে রপ্তানি হয়। বিদেশে এই মাছ বিভিন্ন হোটেলে স্যুপ রান্নায় ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়া দামি ওষুধ তৈরিতেও এই মাছের অংশ ব্যবহার করা হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0