default-image

ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতের পর বৃষ্টি উধাও হয়েছিল। শুরু হয় প্রচণ্ড দাবদাহ। এর মধ্যে চলে আসে রমজান মাস। গরমের তীব্রতা বাড়ায় ঢাকা নগরবাসীর মধ্যে দেখা যায় চরম অস্বস্তি।

গরমের কারণে সেই অস্বস্তি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলেই দেখা যায়। এই তো দুদিন আগেও রাজশাহীতে তাপমাত্রা ছিল ৩৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ৪ মে সর্বশেষ ঢাকা বৃষ্টি হয়েছিল। এরপর থেকেই চলছে দাবদাহ। তাই বৃষ্টির জন্য অপেক্ষা ছিল সবার। অবশেষে সোমবার রাতে নয় দিন পর সেই অপেক্ষার অবসান হলো। রাজধানীর বুকে নামে স্বস্তির বৃষ্টি। সেই বৃষ্টিতে প্রশান্তি আসে গরমে হাঁপিয়ে ওঠা নাগরবাসীর মধ্যে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, সোমবার বিকেলে দেশের উত্তরাঞ্চলের পঞ্চগড়, রংপুর, মধ্যাঞ্চলের ময়মনসিংহ, উত্তর–পূর্বাঞ্চলে সিলেটে এক দফা কালবৈশাখীর সঙ্গে বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। সেখানে বৃষ্টিপাত হয় ৫৪ মিলিমিটার।

অবশ্য ঢাকার বাসিন্দাদের স্বস্তির বৃষ্টি পেতে আরও কিছু সময় অপেক্ষা করতে হয়। রাত ১০টার পর শুরু হয় ঝোড়ো হাওয়া, তারপর নামে ঝুম বৃষ্টি। রাত সাড়ে ১১টায় এই প্রতিবেদন লেখার সময় কারওয়ান বাজার, মগবাজার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বৃষ্টি চলছিল।

আবহাওয়ার অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, এই বৃষ্টি আরও কয়েক দিন থাকতে পারে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0