ইফতেখারুজ্জামান আরও বলেন, ‘এখন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে সেই সদিচ্ছা নেই। তাই পাচার করা টাকা ফেরত আনা সম্ভব হচ্ছে না। কারণ, জাতীয় সংসদে ৬২ শতাংশ ব্যবসায়ী। তাঁরা কোনো না কোনোভাবে রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত।’ টাকা ফেরত আনতে রাজনৈতিক সদিচ্ছার পাশাপাশি সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে শক্তিশালী ও স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ দেওয়া উচিত বলে মনে করেন তিনি।

একই অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, কালোটাকার মালিকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হয় না বলে টাকা পাচার হয়ে যাচ্ছে। বিদেশে টাকা পাচার কমাতে না পারলে সামাজিক বৈষম্য কমানো যাবে না। এতে সামাজিক অস্থিরতা বাড়বে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের যুগ্ম পরিচালক আসিফ ইকবাল বলেন, সরকারি সংস্থাগুলো বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের তথ্য-উপাত্ত মানতে চায় না। কিন্তু বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের তথ্য-উপাত্ত মানা জরুরি। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও সঠিকভাবে যেকোনো বিষয়ের তথ্য-উপাত্ত দিতে পারে।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি ইন্টিগ্রেশন ফর ডেভেলপমেন্টের (র‍্যাপিড) অর্থনীতিবিদ রবিউল ইসলাম।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন