বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চোখের দেখায় জিডিপি, পুরোনো হিসাবে মূল্যস্ফীতি

দুই দিন আগে সরকার মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির সাময়িক প্রাক্কলন প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হিসাব অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি বেড়ে হচ্ছে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশে, যা আগের অর্থবছরে ছিল ৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ। গত অর্থবছরে মাথাপিছু আয় ছিল ২ হাজার ৫৯১ ডলার, এবার তা হচ্ছে ২ হাজার ৮২৫ ডলার।

জিডিপির হিসাব নিয়ে বিতর্ক কয়েক বছর ধরেই হচ্ছে। তবে গতকাল অর্থমন্ত্রী বিতর্ক উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, ‘চারদিকে তাকালেই বুঝতে পারবেন, দেশের অর্থনীতি কতটা শক্তিশালী।’ আর আগের দিন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম শামসুল আলম বলেছিলেন, ‘মানুষের আয় বেড়েছে, তারা মনের আনন্দে বাজার করছে।’

default-image

মানুষের মনের আনন্দ আর চারদিকে তাকিয়ে দেখে জিডিপির হিসাব করা হলেও মূল্যস্ফীতির হিসাব সরকারই করছে সেই ২০০৫-০৬ অর্থবছরকে ভিত্তি বছর ধরে। ফলে বর্তমানের ভোক্তাদের কেনাকাটা, চাহিদা ও রুচির কোনো চিত্র মূল্যস্ফীতিতে পাওয়া যাচ্ছে না। পুরোনো ভিত্তি বছরকে ধরে রাখার কারণে সরকার মূল্যস্ফীতি কম দেখাতে পারছে। সরকারের হিসাবে এখন দেশের মূল্যস্ফীতি ৬ দশমিক ২২ শতাংশ। তবে জাতীয় মূল্যস্ফীতি কাগজে–কলমে যা–ই হোক, সীমিত আয়ের সাধারণ মানুষের ব্যক্তিগত মূল্যস্ফীতি এর চেয়ে অনেক বেশি। মানুষ কষ্টে আছে, কিন্তু সরকারি পরিসংখ্যানে তার প্রমাণ নেই।

বিপদ আন্তর্জাতিক লেনদেনে

রপ্তানি খাতে ৩৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হলেও এর পুরো আয় বাংলাদেশ পাচ্ছে না। দেশের প্রধান রপ্তানি পণ্য পোশাক খাত। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে, স্বাভাবিক সময়ে পোশাক খাতের মূল্য সংযোজনের হার ৫৮ শতাংশের কিছু বেশি। এখন বিশ্বব্যাপী সব ধরনের কাঁচামালের দাম বেড়ে গেছে। ফলে খোলা চোখে রপ্তানি আয়ে যে প্রবৃদ্ধি দেখা যাচ্ছে, প্রকৃত আয় এর চেয়ে কম। অন্য দিকে আমদানি ব্যয় সব হিসাবকে পাল্টে দিচ্ছে।

বাংলাদেশে এর আগে পুরো এক অর্থবছরে সর্বোচ্চ আমদানি ব্যয় হয়েছিল ৬ হাজার ৫৫৯ কোটি ৪৭ লাখ ডলার, গত অর্থবছরে। এবার ৯ মাসেই এই ব্যয় হয়ে গেছে। এই প্রবণতা অব্যাহত থাকলে অর্থবছর শেষে আমদানি ব্যয় দাঁড়াবে ৯ থেকে ১০ হাজার কোটি ডলারে। এখন মাত্র পাঁচ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর মতো বৈদেশিক মুদ্রার মজুত আছে বাংলাদেশ ব্যাংকের হাতে।

অন্যদিকে কোভিডের দুই বছরে প্রবাসী আয়ে যে স্বস্তি ছিল, চলতি অর্থবছরে তা উধাও হয়ে গেছে। এবার প্রবৃদ্ধি পুরোটাই ঋণাত্মক, ১৬ দশমিক ২ শতাংশ। বিপুল আমদানি ব্যয় ও নিম্নমুখী প্রবাসী আয়ের প্রভাবে অর্থবছরের ৯ মাসে চলতি হিসাবের ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৪০৭ কোটি ডলার, যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল সাড়ে ৫৫ কোটি ডলার। দেশের ইতিহাসে চলতি আয়ে এত বড় ঘাটতি আর কখনো হয়নি। চলতি হিসাবে ঘাটতি মানেই সরকারের বৈদেশিক মুদ্রা আয় কম, ব্যয় অনেক বেশি। আয় ও ব্যয়ের এই ভারসাম্যহীনতাই ডলারের দাম বাড়াচ্ছে।

সরকারের জন্য চ্যালেঞ্জ

বিশ্বের সব দেশই পণ্য সরবরাহ অব্যাহত রাখা ও মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণকে মূল কাজ ধরে নিয়ে কৌশল ঠিক করছে। যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ অর্থ সরবরাহ খানিকটা কমিয়ে আনতে নীতিনির্ধারণী সুদহার বাড়িয়ে দিচ্ছে। তবে বাংলাদেশে বেসরকারি বিনিয়োগ এমনিতেই কম। ফলে সুদহার বাড়ানোর কথা ভাবতে পারছে না। বিনিয়োগের অন্যান্য বাধাও দূর করতে পারছে না। এর মধ্যে আবার আন্তর্জাতিক বাজারে সব ধরনের পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি ঘটছে, বেড়েছে জ্বালানি তেলের দাম। আবার সব পণ্য ঠিকমতো পাওয়াও যাচ্ছে না। ফলে উৎপাদনও বিঘ্নিত হচ্ছে।

এ অবস্থায় কী করণীয়, তা নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেনের কাছে। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, বর্তমানে অর্থনীতিতে বহির্বাণিজ্যে ঘাটতি ও উচ্চ মূল্যস্ফীতি নতুন চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে। এই ঘাটতির কারণ, আন্তর্জাতিক বাজারে তেল, সার, শিল্পপণ্য ও যন্ত্রপাতি, ভোজ্যতেল, নির্মাণসামগ্রীসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম ব্যাপকভাবে বেড়েছে। আবার পণ্য আমদানিতে জাহাজভাড়া, বিমাসহ সার্বিক পরিবহন খরচও বেড়েছে। এতে সার্বিকভাবে আমদানি খরচ বেড়েছে, যা ডলারে পরিশোধ করতে হয়। অন্যদিকে ডলার আহরণের অন্যতম বড় উৎস প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স কমে গেছে। ফলে রপ্তানি ভালো হওয়া সত্ত্বেও সার্বিকভাবে ঘাটতি বেড়েছে।

জাহিদ হোসেন আরও বলেন, সার্বিকভাবে বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা বেড়েছে, কিন্তু জোগান কম। ফলে মুদ্রাবাজারে বিশেষ করে খোলাবাজারে বিনিময় হারের ওপর চাপ সৃষ্টি করছে। বাংলাদেশ ব্যাংক ডলার বিক্রি করে পরিস্থিতি সামাল দিচ্ছে। এতে ধীরে ধীরে রিজার্ভ ফুরিয়ে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্য ও সেবার মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় ডলারের জোগান দিতে গিয়ে মাত্র পাঁচ মাসের আমদানি বিল পরিশোধের রিজার্ভ আছে। পর্যাপ্ত রিজার্ভ না থাকলে বাজার আরও অস্থির হয়ে উঠবে। এমন পরিস্থিতিতে একধরনের উভয়সংকটে পড়েছে সরকার। হুকুম দিয়ে নয়, বাজারের চাহিদা অনুযায়ী মুদ্রা বিনিময় হার সমন্বয় করা হলে ডলারের দাম কিছুটা বাড়বে, যা বিলাসপণ্য ও কম প্রয়োজনীয় পণ্য নিরুৎসাহিত হবে। আবার ডলারের দাম বাড়ালে মূল্যস্ফীতিও বাড়তে পারে। তাই কিছুটা ঝুঁকি নিয়ে হলেও তা করা উচিত। কারণ, ৬-৭ শতাংশ মূল্যস্ফীতির চাপ গরিব ও সীমিত আয়ের মানুষের ওপর পড়বে। সরকার তাদের জন্য নগদ সহায়তা প্রদানসহ সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিগুলোর ভাতা বাড়াতে পারে।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন