default-image

প্রথম আলোর ফেসবুক পেজে ‘বিশেষজ্ঞদের কাছে জানুন কেন টিআইএন নেবেন’ শিরোনামের একটি ভিডিও প্রতিবেদন প্রচার করা হয়। সেই প্রতিবেদনের নিচে অনেক পাঠক কর নিয়ে নানা ধরনের প্রশ্ন করেছেন। পাঠকদের আগ্রহের কথা বিবেচনা করে সেখান থেকে নির্বাচিত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হলো

মোস্তফা কামাল: আমি করের আওতায় নেই, কিন্তু কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) আছে। তাহলে আমার কি রিটার্ন জমা দিতে হবে? না দিলে কোনো সমস্যা আছে কি?



উত্তর: অবশই রিটার্ন জমা দিতে হবে। তিন ধরনের কার্যক্রমের জন্য টিআইএন নেওয়া হলেও রিটার্ন না দিলে চলে। যেমন: জমি বিক্রি এবং ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের জন্য টিআইএন নেওয়া হয়েছে। কিন্তু করযোগ্য আয় নেই। তাহলে রিটার্ন দিতে হবে না। আবার বাংলাদেশে ফিক্সড বেজ নেই—এমন অনাবাসীদের রিটার্ন না দিলেও চলে। টিআইএন থাকার পরও রিটার্ন না দিলে জরিমানা, অতিরিক্ত সরল সুদ ও বিলম্ব সুদ আরোপ করার বিধান আছে।

এস এইচ শাওন: টিআইএন কি একাধিকবার খোলা যায়?

উত্তর: না, একাধিকবার খোলার সুযোগ নেই। কারণ, একটি জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) অনুকূলে শুধু একবারই টিআইএন খোলা যায়। টিআইএন পুরোপুরি স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে অনলাইনে দেওয়া হয়। তাই এনআইডির তথ্য যাচাইয়ের সময় দেখা হয়, এই এনআইডির অনুকূলে আরও কোনো টিআইএন খোলা হয়েছে কি না।

বিজ্ঞাপন

রিপন বর্মণ: আমার টিআইএন আছে। কিন্তু আমি করের আওতায় নেই। তাহলে কি কখনো জরিমানা করা হবে?

উত্তর: টিআইএন থাকলে করের আওতায় না থাকলেও রিটার্ন দিতে হবে। তবে হাতে গোনা কয়েকটি ক্ষেত্রে ছাড় আছে। রিটার্ন না দিলে জরিমানা, অতিরিক্ত সরল সুদ ও বিলম্ব সুদ আরোপ করার বিধান আছে।

মহসিনা ইসলাম: অনলাইনে কীভাবে নিবন্ধন (টিআইএন) নিতে হয়?

উত্তর: অনলাইনেই শুধু টিআইএন নেওয়া যায়। অন্য কোনো উপায়ে টিআইএন নেওয়া সম্ভব নয়। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ওয়েবসাইট গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে অনলাইনে টিআইএন নিতে হয়। জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) নম্বর লাগে। এনআইডির সঙ্গে টিআইএন নিতে ইচ্ছুকদের তথ্য মিলিয়ে দেখা হয়। নির্ধারিত তথ্য দিয়ে ফরম পূরণ করলেই অনলাইনে ঘরে বসেই নিজের ইমেইলে চলে আসে টিআইএন সনদ।

আলামিন আলী: পারিবারিক সঞ্চয়পত্র কেনার জন্য আমার স্ত্রীর নামে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে টিআইএন করা হয়। ওর কোনো আয় নেই। কর সার্কেল থেকে ওর নামে কর পরিশোধের চিঠি আসছে। স্ত্রীর তো কোনো আয় নেই, তাহলে কি রিটার্ন দাখিল করতে হবে?

উত্তর: টিআইএন থাকলেই রিটার্ন দাখিল করতে হবে। আর রিটার্ন দাখিল করলেই যে কর দিতে হবে, তা নয়। আপনার স্ত্রীর কোনো আয় নেই, তাই শূন্য আয়ের রিটার্ন দাখিল করতে পারবেন। কোনো কর দিতে হবে না।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন