default-image

ই-কমার্স খাতকে আরও পাঁচ বছর ভ্যাটমুক্ত রাখার দাবি জানিয়েছেন এ খাতের বেশ কয়েকজন উদ্যোক্তা। তাঁরা বলছেন, বিকাশমান এ খাতে এখনই ভ্যাট আরোপ করা হলে মানুষ এখান থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে। অথচ ই-কমার্স খাত নানাভাবে কর্মসংস্থান তৈরি করছে। এই খাতে এখন প্রায় দুই লাখ মানুষ যুক্ত।

প্রথম আলো আয়োজিত ‘বাজেটে তারুণ্যের চাওয়া-পাওয়া’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে এ খাতের উদ্যোক্তারা এসব কথা বলেন। গতকাল বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজারের সিএ ভবনে আয়োজিত এ গোলটেবিল বৈঠক সঞ্চালনা করেন প্রথম আলোর যুব কার্যক্রমের প্রধান মুনির হাসান।

আলোচনায় অংশ নিয়ে আজকের ডিলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহিম মাসরুর বলেন, অনলাইন কেনাবেচায় বাংলাদেশ এখনো ভারত, ভিয়েতনাম ও পাকিস্তানের চেয়ে পিছিয়ে আছে। সিংহভাগ প্রযুক্তিভিত্তিক কোম্পানি এখনো লোকসান দিচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে ভ্যাট আরোপ করা হলে খাতটি বিপর্যয়ের মুখে পড়বে।

যুক্তরাষ্ট্রে এখনো মোট খুচরা বিক্রির মাত্র ১০ শতাংশ অনলাইনে হচ্ছে। অন্যদিকে আমাজন ২৩ বছর পর প্রথম মুনাফার মুখ দেখেছে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের প্রযুক্তিভিত্তিক উদ্যোগগুলো এখন মাতৃগর্ভে আছে বলে মনে করেন সহজ ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মালিহা কাদির। বাজেটে ই-কমার্সের ওপর যে ভ্যাট প্রস্তাব করা হয়েছে, তা বিদেশি ভেঞ্চার ক্যাপিটাল আকৃষ্ট করার ক্ষেত্রে বাধা হয়ে উঠতে পারে। তিনি বলেন, প্রযুক্তিভিত্তিক কোম্পানি বা স্টার্টআপগুলো ব্যাংকঋণ পায় না। তাই তাদের ভেঞ্চার ক্যাপিটাল থেকে অর্থ নিয়ে ব্যবসা করতে হয়।

গোলটেবিল আলোচনায় বক্তারা তরুণদের আত্মকর্মসংস্থানে উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান জানান। বিডি ভেঞ্চারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শওকত হোসেন বলেন, কর্মসংস্থান তৈরিতে বরাদ্দ দেওয়ার চেয়ে তরুণদের কর্মোপযোগী করে গড়ে তোলা দরকার। এতে তরুণেরা নিজেদের পথ নিজেরা করে নিতে পারবেন। পাশাপাশি তিনি ব্যবসা সহজ করতে তথ্যভান্ডার তৈরিতে জোর দেন। কারণ, তথ্যভান্ডার না থাকলে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন।

অন্যদিকে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বা এসডিজি এবং ভিশন ২০৪১-এর লক্ষ্য অর্জনে কর্মসংস্থান ও উদ্যোক্তা তৈরিতে সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়া উচিত বলে মত দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জুবেলী খানম। প্রস্তাবিত বাজেটে ১০০টি উপজেলায় কারিগরি বিদ্যালয় স্থাপনের কথা বলা হয়েছে। তাঁর মতে, ১০০টি নয়, দেশের সব উপজেলায় কারিগরি বিদ্যালয় স্থাপন করা প্রয়োজন।

এমডিজিতে (সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা) শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে সংখ্যাগত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব হয়েছে। এবার এসডিজির (টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা) আলোকে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যে গুণগত মান অর্জন করতে হবে বলে মত দেন সঞ্চালক মুনির হাসান। তিনি বলেন, এ জন্য শিক্ষা ও গবেষণায় বরাদ্দ বাড়াতে হবে।

নারীদের জন্য বাজেটে বিশেষ কিছু নেই বলে মনে করেন চাকরি খুঁজব না, চাকরির দেব প্ল্যাটফর্মের পরিচালক প্রীতি ওয়ারেসা। এত দিন নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বাজেটে ১০০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ রাখা হতো। কিন্তু এবার শুধু নারী নয়, সবার জন্যই এই বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে মালিহা কাদির বলেন, নারীদের উদ্যোক্তা হতে অনুপ্রাণিত করতে হবে। প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন চালডালের প্রধান নির্বাহী জিয়া আশরাফ, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান কাজী হাসান রবিন, প্রথম আলোর বিশেষ বার্তা সম্পাদক শওকত হোসেন, ইউনিকম বাংলাদেশের বিপণন পরিচালক কাজী মাহবুব মোর্শেদ, শিক্ষা গবেষক ইবরাহিম মুদ্দাসসের, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাবাসসুম ইসলাম, বিইউপির বিতার্কিক রিদওয়ানুল আরেফিন, উদ্যোক্তা ও শিক্ষার্থী মাহামুদুল হাসান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলো এত দিন কমিশনের ওপর ৫ শতাংশ হারে ভ্যাট দিত। কিন্তু এবারের প্রস্তাবিত বাজেটে ভাড়ার ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে। পাশাপাশি রাইডারের আয়ের ওপর উইথ হোল্ডিং কর দিতে হবে। এতে বিকাশমান এই খাতে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করছেন তরুণ উদ্যোক্তারা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0