বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আলাপকালে রুমানার স্বামী অমি আজাদ বলেন, ‘আমি একদিন বললাম, তোমার রান্নাবান্নার যাবতীয় তথ্য অনলাইনে আর্কাইভ করে ফেলতে পারো।’ ২০১২ সালে ইউটিউব তেমন একটা জনপ্রিয় হয়নি। তাই স্বামীর পরামর্শে ব্লগে লেখার কথা ভাবলেন রুমানা আজাদ। পরে মনে হলো, শুধু লিখে কি বোঝানো যাবে সব? তাই ঠিক করা হলো, রান্নার পাশাপাশি ভিডিও তৈরি করা হবে। যেখানে বিস্তারিতভাবে ওই পদ বানিয়ে দেখানো হবে। আমরা খুব উৎসাহ দিলাম। রান্নার পর ওই খাবার খাওয়ার জন্য তো কাউকে লাগবে—হাসতে হাসতে বললেন রুমানার স্বামী।

তারপর ২০১২ সালের ১৫ ডিসেম্বর প্রথম ভিডিও প্রকাশের প্ল্যাটফর্ম ডেইলি মোশনে ভিডিও অবমুক্ত করলেন রুমানা। বাসায় যে ক্যামেরা ছিল, সেটা দিয়েই শুরু। সেই সময় ইউটিউব থেকে টাকা আয়ের কোনো ধারণা ছিল না রুমানার। এমনকি বাংলাদেশ থেকে ইউটিউবে চ্যানেল খোলাটাও সহজ ছিল না। তাই রুমানার রান্নাবান্নার চ্যানেল খোলা হয়েছিল সিঙ্গাপুরপ্রবাসী এক বন্ধুর ঠিকানা ব্যবহার করে। ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে ইউটিউবের পার্টনার প্রতিষ্ঠান মিডিয়াকর্প সিঙ্গাপুর থেকে রুমানার সঙ্গে যোগাযোগ করে। তারা জানায়, ‘ইউটিউব থেকে রোজগারের সুযোগ আছে।’ পরে এ বিষয়ে সিঙ্গাপুরে আয়োজিত কয়েকটি কর্মশালায় অংশ নেন রুমানা। তারপরই ইউটিউব থেকে তাঁর রোজগার শুরু হয়। আর ২০২০ সাল থেকে ফেসবুক পেজ থেকে আয় শুরু করেন তিনি। বর্তমানে এই দুই চ্যানেল থেকে ভালো অঙ্কের টাকা রোজগার করেন রুমানা।

শুধু ইউটিউব ও ফেসবুকের ওপর নির্ভরশীল থাকা ঠিক? এমন প্রশ্নের জবাবে রুমানা বলেন, ইউটিউব ও ফেসবুক–নির্ভরতার কারণ, শুধু ভিউর ওপর নির্ভর করতে হয়। এতে অহেতুক ও যেনতেনভাবে ভিডিও তৈরি করার ঝোঁকও বাড়ে।’

এ জন্য ২০১৬ সাল থেকে বিভিন্ন দেশি ব্র্যান্ডের সঙ্গে কাজ করছেন রুমানা। মার্কস দুধ, রুপচাঁদা তেল, প্রাণ অ্যাগ্রো, এসিআই মসলা, আড়ং ডেইরির মতো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে নিয়মিত কাজ করছেন। ইউটিউব/ফেসবুকের আয়ের পাশাপাশি এগুলো এখন তাঁর আয়ের উৎস।

প্রযুক্তির কল্যাণে রুমানার মতো সৃজনশীল নারীদের নানা সুযোগ তৈরি হচ্ছে। তবে তা থেকে নিজের আয়রোজগার করতে হলে নৈতিকতা বাদ দিয়ে ভিউ বাড়ানোর কাজে নামলে হবে না। মানসম্মত কনটেন্ট লাগবে বলে মনে করেন রুমানা। তিনি বলেন, ‘ইউটিউব থেকে প্রথম রোজগার পেতে আমার দুই বছর আর ফেসবুক থেকে প্রথম আয়ের জন্য এক বছর অনেক ভিডিও তৈরি করে প্রকাশ করতে হয়েছে।’

রুমানার ইউটিউব চ্যানেলে এখন ১৩ লক্ষাধিক দর্শক আছেন এবং তাঁর ৬৫০টি ভিডিও এ পর্যন্ত ১৭ কোটি বারের বেশি দেখা হয়েছে। তাঁর চ্যানেলটি পেয়েছে গোল্ড বাটন।

নিত্যদিনের দায়িত্বের পাশাপাশি নানা রকম রেসিপি সবার কাছে পৌঁছে দেওয়া এবং বিভিন্ন খাবার বা খাবারসম্পৃক্ত প্রতিষ্ঠানের জন্য মানসম্মত ভিডিও নির্মাণের কাজ চালিয়ে নিতে চান রুমানা আজাদ।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন