বান্দরবানের সাইরু রিসোর্টের বিরুদ্ধে ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগে মামলা করেছে ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদপ্তর। রিসোর্টটির বিরুদ্ধে ২ কোটি ১২ লাখ টাকা ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ আনা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদপ্তর।
এতে জানানো হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্যাট গোয়েন্দার একটি দল গত বছরের ৩০ নভেম্বর সাইরু রিসোর্টে অভিযান চালায়। অভিযানে গোয়েন্দারা রিসোর্ট প্রাঙ্গণের কম্পিউটার থেকে তথ্য ও অন্য কাগজপত্র জব্দ করে। এরপর দীর্ঘ তদন্ত শেষে ভ্যাট ফাঁকির পরিমাণ চূড়ান্ত করা হয়। এরপরই মামলা করা হয়।

বিজ্ঞাপন
সাইরু রিসোর্ট অতিথিদের কাছ থেকে চালানের মাধ্যমে ভ্যাট সংগ্রহ করেছে। কিন্তু সেই টাকার একটা বড় অংশ সরকারি কোষাগারে জমা দেয়নি।

ভ্যাট গোয়েন্দার তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী, রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ বান্দরবান ভ্যাট অফিসে তাদের প্রকৃত বিক্রির হিসাব গোপন রেখে রিটার্ন পেশ করে আসছিল। সাইরু ২০১৮ সালের নভেম্বর হতে ২০২০ সালের অক্টোবর পর্যন্ত (২৪ মাসে) ১ কোটি ৭০ লাখ টাকার ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে। ভ্যাট আইন অনুযায়ী সময়মতো ভ্যাট না দেওয়ায় ২ শতাংশ হারে ৪২ লাখ টাকার সুদ প্রযোজ্য হবে। তাতে ২৪ মাসে সর্বমোট ফাঁকি দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ১২ লাখ টাকায়।

করোনার কারণে গত বছরের এপ্রিল থেকে জুলাই পর্যন্ত রিসোর্টটি বন্ধ ছিল। তদন্তে ওই মাসগুলোর ভ্যাটের হিসাব ধরা হয়নি। ভ্যাট গোয়েন্দাদের তদন্তে আরও দেখা যায়, সাইরু রিসোর্ট অতিথিদের কাছ থেকে চালানের মাধ্যমে ভ্যাট সংগ্রহ করেছে। কিন্তু সেই টাকার একটা বড় অংশ সরকারি কোষাগারে জমা দেয়নি। প্রতিষ্ঠানটি গড়ে প্রতি মাসে এক লাখ টাকা ভ্যাট দিয়ে রিটার্ন দাখিল করে আসছিল। অথচ রিসোর্টটির প্রতি মাসে গড়ে ১০ লাখ টাকা ভ্যাট প্রদেয় হয়। সেই হিসাবে তারা ১০ ভাগের ১ ভাগ ভ্যাট দিত।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন