default-image

চীনের করোনাভাইরাসের প্রভাব পড়ছে বিশ্ব অর্থনীতিতে। মৃত্যুর মিছিল বড় হওয়ার পাশাপাশি অর্থনীতির নানা দিকে ধসের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বৈশ্বিক জ্বালানি তেলের বাজারেও। চাহিদা কমায় গত কয়েক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমেছে ১৫ শতাংশ। মার্কিন ব্যাংক ও বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান গোল্ডম্যান স্যাকস জানিয়েছে, চলতি বছর জ্বালানি পণ্যটির বৈশ্বিক চাহিদা কমে এক দশকের বেশি সময়ের সর্বনিম্নে নামতে পারে। খবর ওয়েলপ্রাইসডটকম।

বিশ্লেষকেরা আশঙ্কা করছেন, বিশ্ববাজারে চাহিদা কমায় জ্বালানি তেলের দাম কমে ৪০ ডলারের নিচে নেমে আসতে পারে।

গতকাল সোমবার বিশ্ববাজারে পণ্যটির দাম কমে ৫০ ডলারের নিচে নেমে আসে।

চাহিদা কমার পেছনে কারণ হিসেবে বিশ্লেষকেরা বলছেন, চীন বিশ্বের শীর্ষ জ্বালানি তেল ভোক্তা ও পণ্যটির দ্বিতীয় শীর্ষ পরিশোধনকারী দেশ। ফলে দেশটির যেকোনো ধরনের অর্থনৈতিক পরিবর্তন তেল খাতসংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক প্রভাব ফেলে। চলতি বছরে দেশটিতে পণ্যটির চাহিদা দৈনিক গড়ে ২০ থেকে ৩০ লাখ ব্যারেল কমে যেতে পারে। করোনার প্রভাবে প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) আগের বছরের তুলনায় ২ লাখ ব্যারেল কমে দেশটিতে তেলের চাহিদা দৈনিক গড়ে ১ কোটি ৩০ লাখ ব্যারেলে নামতে পারে। ২০০৯ সালের পর যা সর্বনিম্ন। এ ছাড়া এর মধ্যে চীনের প্রবৃদ্ধি পূর্বাভাসও কমিয়েছে বিভিন্ন গবেষণা সংস্থা। চলতি বছর চীনের প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ৮ শতাংশ থেকে কমে সাড়ে পাঁচ শতাংশ হওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা।

চীনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। প্রতিদিনই মৃতের সংখ্যা রেকর্ড ছাড়াচ্ছে। এ ছাড়া বিশ্বের আরও কয়েকটি দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে নাজুক এই পরিস্থিতি তেলের বাজারে নেতিবাচক হবে এমনটাই আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকেরা।

বিজ্ঞাপন
বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন