default-image

করোনাভাইরাসের প্রকোপে মানুষের জীবন ও জীবিকা উভয়ই হুমকির মুখে পড়েছে। ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে প্রথম দিকে সারা পৃথিবীতেই লকডাউন শুরু হয়। এর জেরে জীবিকার সমস্যা প্রকট হয়ে ওঠে। বড় ব্যবসা একভাবে টিকে থাকলেও ক্ষুদ্র উদ্যোগ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যাঁরা টিকে আছেন, তাঁদের অবস্থাও ভালো নয়। করোনার মধ্যে কীভাবে ব্যবসা বাড়ানো যায়, তার উপায় বাতলেছে ইউএস চেম্বার অব কমার্সের উদ্যোক্তা সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান কো।

১। ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে কৌশলী হওয়া

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের হাজারো উপায় আছে। এর মধ্যে কিছু কিছু একদমই কম টাকায় বা বিনা মূল্যে করা যায়, যেমন ব্লগ লেখা বা ই–মেইলে নিউজলেটার পাঠানো। ব্যবসা–বাণিজ্যের অবস্থা ভালো না হওয়ায় খরচের বিষয়ে সচেতন হওয়াই ভালো। খরচের আগেই ভাবতে হবে, মুনাফা হবে কি না। এতে কাজ যেমন উদ্ধার হবে, তেমনি অপচয়ও হবে না।

বিজ্ঞাপন

২। ক্রেতার অবস্থা বোঝা

শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে মানুষ সশরীরে বাজারে যাওয়া বা কোথাও জমায়েত হওয়া কমিয়ে দিলেও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঠিকই সক্রিয়। সেখানে তাঁরা গল্প বলেন, সুখ–দুঃখ ভাগাভাগি করেন। এই পরিস্থিতিতে উদ্দিষ্ট ক্রেতাশ্রেণি নির্ধারণ করে তাঁদের অনলাইন কর্মকাণ্ডে মনোযোগী হতে হবে। এতে বোঝা যাবে, ক্রেতারা এখন পণ্যে কী ধরণের সুবিধা চাচ্ছেন, আর সে জন্য কত পয়সা খরচের সক্ষমতা তাঁদের আছে।

৩। অনলাইন বিক্রির কৌশল ঝালাই

সরাসরি কথা বলা, আর অন্তর্জালে কথা বলার মধ্যে এখন খুব বেশি তফাত নেই। ক্যামেরাকেই ক্রেতা মনে করে সাবলীলভাবে কথা বলার অনুশীলন করে নিতে হবে। বরং ক্রেতা যেন পণ্যের সঠিক রূপ বা গুণ বুঝতে পারেন এবং বিক্রেতার কথা শুনতে পান, সে জন্য ক্যামেরার মান, ঘরের আলো ও গ্রাহকযন্ত্রের ব্যাপারে মনোযোগী হতে হবে। পণ্যের সঙ্গে পণ্যের ব্যবহারবিধি, উপকারিতা—এসবও যুক্ত করা যায়। এভাবে ক্রেতাদের মধ্যে নিজের অবস্থান তৈরি করা যায়। ক্রেতা এই মুহূর্তে পণ্য না কিনলেও পরে ফিরে আসবেন।

বিজ্ঞাপন
default-image

৪। আগ্রহ তৈরি করতে ভার্চ্যুয়াল অনুষ্ঠান

পারস্পরিক ভাব জমানোর জন্য ভার্চ্যুয়াল অনুষ্ঠান আয়োজনের পাশাপাশি সামর্থ্য অনুযায়ী পুরস্কারও দেওয়া যেতে পারে। এমনকি বিশেষজ্ঞ দিয়ে ক্রেতার প্রশ্নের জবাবও দেওয়া যেতে পারে। এভাবে পণ্যের প্রতি ক্রেতার আগ্রহ বজায় রাখা যায়।

৫। বিক্রেতার দৈনন্দিন কাজ ক্রেতাকে জানানো

বিক্রি না হলেও সেই সময় সংযোগ তৈরি করা যায়। এর জন্য সবচেয়ে মোক্ষম উপায় হচ্ছে, এই মুহূর্তে ব্যবসায় কী হচ্ছে, তা ক্রেতা এবং বাজারকে জানাতে থাকা। ধরুন, আপনি জুতা তৈরি করেন, কিন্তু এখন উৎপাদন খুবই কম, আবার যা উৎপাদিত হচ্ছে, তা–ও বিক্রি হচ্ছে না। এই অবস্থায় হয়তো আপনি নতুন পণ্যের ডিজাইন করছেন, সেই ডিজাইনের ছবিই দেখান অংশীদারদের। এতে তাঁরা পণ্যের যাত্রার সঙ্গে যুক্ত হবে এবং পণ্য সম্পর্কে আগ্রহী হবেন।

বিজ্ঞাপন

৬। অংশীদারদের সঙ্গে সত্য ও স্বচ্ছ সম্পর্ক তৈরি

মহামারিতে সবাই বিপদে আছেন। এ সময় ক্রেতা, কর্মচারী, সরবরাহকারী—সবার সঙ্গেই নিয়মিত যোগাযোগ রাখাই হবে সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ। নিজের কথা বলতে হবে, অন্যদের কথাও শুনতে হবে। প্রকৃত অবস্থা জানা থাকলে সম্পর্ক সুন্দর থাকবে।

মন্তব্য পড়ুন 0