বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এবারের রোজার শুরু থেকেই জমজমাট নিউমার্কেটের বেচাকেনা। নিউমার্কেটের হৃদয় এক্সক্লুসিভ থ্রি-পিস কালেকশনের মালিক মোহাম্মদ শাহজালাল বলেন, গত দুই বছর পর করোনার কারণে ব্যবসা ছিল একেবারে মন্দা। এবার বেচাবিক্রি খুব ভালো। বগুড়া শহরে মেয়েদের দেশি-বিদেশি সব ধরনের থ্রি-পিস বিক্রি করে রনি ক্লথ স্টোর। শহরের নিউমার্কেট ও রানার প্লাজায় প্রতিষ্ঠানটির তিনটি শোরুম রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির মালিক কালাচাঁদ সাহা বলেন, ‘এবারের ঈদে বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে ভারত থেকে আনা হয়েছে “কাঁচা বাদাম” ও “পুষ্পা” নামের ভারতীয় থ্রি-পিস। ভারতের ভুবন বাদ্যকরের গানের সঙ্গে মিল রেখে এবার ঈদে বাজারে এসেছে কাঁচা বাদাম। আর বক্স অফিস হিট দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমা পুষ্পা নামের পোশাকও বাজারে আসে। ভেবেছিলাম এ দুই পোশাকের বিক্রি সবচেয়ে বেশি হবে। কিন্তু আশানুরূপ বিক্রি হয়নি।’

নিউমার্কেটের পাশাপাশি জমজমাট অভিজাত বিপণিকেন্দ্র রানার প্লাজাও। এ বিপণিবিতানে রয়েছে আড়ংয়ের শোরুম। সেখানে মধ্যরাত পর্যন্ত ক্রেতাদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। এ বিপণিবিতানের বিভিন্ন শোরুম ও দোকানে মেয়েদের থ্রি-পিস, টু-পিস, লেহেঙ্গা ছাড়াও বাহারি শাড়ি বেশি বিক্রি হচ্ছে।

এ ছাড়া শহরের জলেশ্বরীতলার ব্র্যান্ডের শোরুমগুলোতেও শেষ মুহূর্তের কেনাবেচায় রাত-দিন ব্যস্ত ক্রেতা-বিক্রেতারা। এ এলাকার শহীদ আবদুল জব্বার সড়কের আর্টিসান, শপার্স অ্যান্ড শপার্স, লেন্ড, এমব্রেলা, ইনল্যান্ড মার্ট, ডিমান্ড, টুয়েলভ, ইনফিনিটি, জেন্টল পার্ক, ইজি, মেনস ওয়ার্ল্ড, দর্জি বাড়ি, রিচম্যান ইত্যাদি শোরুমে ভিড় ছিল বেশি। আর্টিসানের একজন বিক্রয়কর্মী জানান, এ বছর তাঁদের শোরুমে রেকর্ড পোশাক বিক্রি হয়েছে।

জলেশ্বরীতলা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডোনিস বাবু তালুকদার বলেন, শুধু জলেশ্বরীতলা এলাকায় গড়ে ওঠা অভিজাত ফ্যাশন হাউস ও শোরুমগুলোতে এবারের ঈদে প্রায় ১০০ কোটি টাকার ব্যবসা হয়েছে।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন