বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঢাকার আরও দুটি পাইকারি ও খুচরা বাজারের দামের তুলনা করে দেখা গেছে, পেঁয়াজে পাইকারি ও খুচরায় দামে পার্থক্য মোটামুটিভাবে ২০ থেকে ২৫ টাকা। বাজারে এক মাস আগেও যখন প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ৪০ টাকার মধ্যে ছিল, তখন পাইকারি বাজারে দাম থাকত ২৮ থেকে ৩০ টাকার মধ্যে। এখন যখন দাম অনেক বেড়ে গেছে, তখন পাইকারি ও খুচরার পার্থক্যও বাড়ছে।

পাইকারি বিক্রেতা রাকিব হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ৮২ টাকায় কিনে ৯০ থেকে ৯৫ টাকার মধ্যে বিক্রি করা উচিত। ১১০ টাকা তো অনেক বেশি। তিনি বলেন, ‘আমরা বিক্রির সময় রসিদ দিই। সেটা যাচাই করলেই কত দামে কেনে, আর কত দামে বিক্রি করে, তা বেরিয়ে আসবে।’

অবশ্য খুচরা বিক্রেতাদের নানা যুক্তি আছে। পীরেরবাগের ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতা আবদুস সালাম বলেন, দাম বেড়ে যাওয়ায় পেঁয়াজের বিক্রি কমে গেছে। অথচ পরিবার চালাতে তাঁকে অন্তত ৫০০ টাকা আয় করতে হয়। তিনি বলেন, আগে ৩০ টাকা খাটিয়ে ৫ টাকা লাভ করলে এখন খাটাতে হচ্ছে ১০০ টাকা। ফলে লাভের পরিমাণও একটু বেশি হবে।

৮২ টাকায় কিনে ৯০ থেকে ৯৫ টাকার মধ্যে বিক্রি করা উচিত। ১১০ টাকা তো অনেক বেশি।
রাকিব হোসেন, পাইকারি বিক্রেতা

সব মিলিয়ে খুচরায় প্রভাব না পড়ায় পাইকারি বাজারে দাম কমার সুফল ক্রেতারা পাচ্ছেন না। পুরান ঢাকার শ্যামবাজারে গতকাল দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৭০ থেকে ৭৫ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। গত মঙ্গলবারের তুলনায় তা ১৫ থেকে ২০ টাকা কম। আর ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৫২ থেকে ৫৫ টাকায়, যা কমেছে ১৫ টাকার মতো।

ঢাকার কারওয়ান বাজারেও পেঁয়াজের দাম কমেছে। গতকাল সেখানের আড়তের বিক্রেতারা পাঁচ কেজি করে দেশি কিং নামে পরিচিত পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৮০ টাকা, পাবনা ও রাজশাহীর দেশি পেঁয়াজ ৯০ থেকে ৯৫ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৬০ টাকা দরে বিক্রি করেন। বস্তা নিলে দাম আরেকটু কম পড়ে।

বিক্রেতারা বলছেন, গত সোমবার ভারত রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ার পর মানুষের মধ্যে কেনার যে হিড়িক পড়েছিল, তা এখন নেই। অন্যদিকে কৃষক ও ফড়িয়ারা বাড়তি পরিমাণে পেঁয়াজ বাজারে নিয়ে আসছেন। এতে সরবরাহ বাড়ায় দাম কমছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত ছাড়া শুল্ক বিভাগ ওই পেঁয়াজ ছাড় করতে পারছে না। পেঁয়াজ পচে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। পেঁয়াজ ছাড় করাতে সরকারি আলোচনা দরকার।
রফিকুল ইসলাম, পেঁয়াজ আমদানিকারক ও বেনাপোলের ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়াডিং (সিঅ্যান্ডএফ) এজেন্ট

বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের (বিটিটিসি) হিসাবে, দেশে বছরে ২৫ লাখ মেট্রিক টন পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাবে উৎপাদন হয়েছে সাড়ে ২৫ লাখ টন। তবে সংরক্ষণজনিত ক্ষতি বাদ দিলে সরবরাহ দাঁড়ায় ১৯ লাখ টনের কিছু বেশি। দেশে এখন পেঁয়াজের মজুত রয়েছে সোয়া পাঁচ লাখ টনের মতো।

কমিশনের সদস্য শাহ মো. আবু রায়হান আলবেরুনী প্রথম আলোকে বলেন, সামাজিক অনুষ্ঠানাদি বন্ধ থাকায় এখন মাসে ১ লাখ ৭০ হাজার টনের মতো পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে। মজুত দিয়ে আড়াই থেকে তিন মাসের মতো চলবে। এরপর নতুন পেঁয়াজ উঠতে শুরু করবে। এ ছাড়া সরকারি ও বেসরকারিভাবে আমদানি করা হচ্ছে। উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।

বন্দরে আটকা ট্রাক

ভারত রপ্তানি বন্ধ করার আগে যেসব পেঁয়াজের ট্রাক বাংলাদেশের পথে রওনা হয়েছিল, তা এখনো স্থলবন্দরে আটকে আছে। ভারত সরকার গত সোমবার সন্ধ্যায় পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করে। এর আগে ওই দিন সকাল থেকেই ট্রাক বাংলাদেশে ঢোকেনি।

শুল্কায়নসহ রপ্তানির অনুমতি নিয়ে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে (বেনাপোলের ওপাশ) পেঁয়াজবোঝাই অন্তত ১৫টি ট্রাক এবং সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরের বিপরীতে ঘোজাডাঙ্গা বন্দরে ১৭০টি ট্রাক দাঁড়িয়ে আছে। হিলিতে রয়েছে প্রায় ২০০ ট্রাক। সোনামসজিদ স্থলবন্দরে ঢোকার অপেক্ষায় প্রায় ৩০০ ট্রাক।

পেঁয়াজ আমদানিকারক ও বেনাপোলের ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়াডিং (সিঅ্যান্ডএফ) এজেন্ট রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত ছাড়া শুল্ক বিভাগ ওই পেঁয়াজ ছাড় করতে পারছে না। পেঁয়াজ পচে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। পেঁয়াজ ছাড় করাতে সরকারি আলোচনা দরকার।

(প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন নিজস্ব প্রতিবেদক, সাতক্ষীরা; যশোর অফিস, প্রতিনিধি দিনাজপুর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ)

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন