চারটি শ্রেণীতে এবার দেওয়া হবে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা পুরস্কার

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান সিটিগ্রুপের মানবকল্যাণমুখী সংগঠন সিটি ফাউন্ডেশন পঞ্চমবারের মতো আয়োজন করেছে ‘সিটি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা পুরস্কার- ২০০৯’। এ বছর মোট চারটি শ্রেণীতে এ পুরস্কার দেওয়া হবে। এর আগে ক্ষুদ্রঋণের সাফল্যের ভিত্তিতে তিনটি শ্রেণীতে এ পুরস্কার দেওয়া হতো। প্রতিটি পুরস্কারের মূল্য তিন লাখ ৫০ হাজার টাকা।জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সিটি ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে এ পুরস্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়। এ সময় বলা হয়, দেশের অর্থনীতিতে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা যে অবদান রাখছেন, এর স্বীকৃতির পাশাপাশি ক্ষুদ্র শিল্প স্থাপনের উদ্যোগকে উত্সাহিত করা এবং ক্ষুদ্র আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর যথার্থ স্বীকৃতি দেওয়াই পুরস্কারের মূল লক্ষ্য। আর পুরস্কারের এ আয়োজন সফল করতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদকে প্রধান করে গঠন করা হয়েছে একটি উপদেষ্টা পরিষদ। সংবাদ সম্মেলনে ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ ছাড়াও উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সাবেক অর্থসচিব সিদ্দিকুর রহমান চৌধুরী, অর্থনীতিবিদ আবু আহমেদ, এনজিও অ্যাফেয়ারস ব্যুরোর মহাপরিচালক মোস্তাক হাসান মো. ইফতেখার, শক্তি ফাউন্ডেশন ফর ডিজ-অ্যাডভান্টেজ উইমেনের প্রতিষ্ঠাতা, নির্বাহী পরিচালক হুমায়রা ইসলাম এবং সিটিগ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিটি কান্ট্রি অফিসার মামুন রশীদ উপস্থিত ছিলেন। পরিষদের অন্য সদস্যরা হলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান, সাবেক গভর্নর সালেহ্উদ্দিন আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা আকবর আলি খান, রোকেয়া এ রহমান, ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক মাহবুব হোসেন, অ্যালিকোর আঞ্চলিক সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট নূরুল ইসলাম, সিনজেনটা বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সারওয়ার আহমেদ এবং গ্রামীণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এইচ আই লতিফি।ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, দেশের মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে এবং দেশের অর্থনৈতিক ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করার লক্ষ্যে ক্ষুদ্রঋণ বিরাট ভূমিকা পালন করে। নানা প্রতিকূলতার মধ্যে এ দেশের ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা অর্থনীতি এবং জাতীয় আয়ে অবদান রেখে চলেছেন।এবার যে চারটি বিভাগে পুরস্কার দেওয়া হবে সেগুলো হলো—কৃষি খাতে শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা, শ্রেষ্ঠ নারী উদ্যোক্তা, শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ও শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্রঋণ দাতা প্রতিষ্ঠান।