বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কর্মকর্তারা জানান, ব্যাগেজ ঘোষণায় এই পণ্য আমদানিযোগ্য নয়। ঘোষণা ছাড়াই এই পণ্য এনে সরকারের প্রায় তিন লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টা করেছেন ওই যাত্রী। এ ঘটনায় যাত্রী সুলতান মাহমুদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছে কাস্টমস।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ঈদের দিন ছাড়া শুক্রবার থেকে (২৯ এপ্রিল) থেকে বুধবার পর্যন্ত (৪ মে) সরকারি ও সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কাস্টম হাউসগুলো সীমিত আকারে খোলা রাখার নির্দেশনা দিয়েছিল। এই নির্দেশনার পর কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ ফখরুল আলম আলাদা অফিস আদেশ জারি করেন। তাতে রপ্তানি কার্যক্রম যাতে কোনোভাবেই ব্যাহত না হয়, তা নিশ্চিত করতে বলা হয়। আবার বাণিজ্যিক চালান ও রেয়াতি সুবিধায় আমদানি পণ্য চালান শুল্কায়নে সতর্কতা অবলম্বনের কথা বলা হয়।
ছুটির সময়ে দায়িত্ব পালন করছেন চট্টগ্রাম কাস্টমসের যুগ্ম কমিশনার মো. সালাহউদ্দিন রিজভী।

তিনি কাস্টম হাউস থেকে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ছুটিতেও জরুরি আমদানি পণ্য খালাস হচ্ছে। রপ্তানি কার্যক্রম পুরোপুরি সচল আছে। তবে সুযোগ নিয়ে কেউ যাতে সন্দেহভাজন পণ্য খালাস করতে না পারে, সে জন্য সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। সতর্কতার কারণেই বিমানবন্দরে একটি চালান ধরা পড়েছে।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন