শেয়ারবাজার

জিল বাংলার স্থগিতাদেশে কমল ‘জেড’-এর দাপট

  • জিল বাংলা সুগার মিলসের লেনদেন স্থগিতের সিদ্ধান্তে শেয়ারবাজারে গতকাল ‘জেড’ শ্রেণির কোম্পানির শেয়ারের ব্যাপক দরপতন।

  • ডিএসইতে গতকাল দর পতনের দিক থেকে শীর্ষ ১০ কোম্পানির সব কটিই ছিল জেড শ্রেণির।

  • স্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির লাগাম টানতে গতকাল মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য জিল বাংলার লেনদেন স্থগিত করে বিএসইসি।

বিজ্ঞাপন
default-image

জিল বাংলা সুগার মিলসের লেনদেন স্থগিতের সিদ্ধান্তে শেয়ারবাজারে গতকাল ‘জেড’ শ্রেণির কোম্পানির শেয়ারের ব্যাপক দরপতন হয়েছে। দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) এদিন দরপতনের দিক থেকে শীর্ষ ১০ কোম্পানির সব কটিই ছিল জেড শ্রেণির।

অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির লাগাম টানতে গতকাল মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য জিল বাংলার লেনদেন স্থগিত করে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। এ খবরে গতকাল জেড শ্রেণির সিংহভাগ শেয়ারের দামে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
ডিএসইর গতকালের লেনদেনের তথ্যানুযায়ী, এদিন ঢাকার বাজারে জেড শ্রেণির ৩৮টি কোম্পানির লেনদেন হয়। তার মধ্যে ৩৩ টিরই দাম কমেছে। এর মধ্যে আবার ১০টিই ছিল টপ টেন লুজার বা দরপতনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির তালিকায়।

জানা গেছে, কারসাজির মাধ্যমে জিল বাংলার শেয়ারের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রাথমিক তথ্য পেয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তার ভিত্তিতেই কোম্পানিটির লেনদেন অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়। এক ব্রোকারেজ হাউস থেকে দুই হিসাবে জিল বাংলার বিপুল শেয়ার কেনা হয়। ব্রোকারেজ হাউসটির ডিলার হিসাব ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের ব্যক্তিগত হিসাবে এসব শেয়ার কেনার তথ্যপ্রমাণ পেয়েছে বিএসইসি। এতে বাজারে কোম্পানিটির শেয়ারের সংকট তৈরি হয় এবং অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ঘটে। মাত্র দুই মাসের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারের দাম ৩২ টাকা থেকে বেড়ে হয় ২১৩ টাকা।

ডিএসইর গতকালের লেনদেনের তথ্যানুযায়ী, এদিন ঢাকার বাজারে জেড শ্রেণির ৩৮টি কোম্পানির লেনদেন হয়। তার মধ্যে ৩৩ টিরই দাম কমেছে। এর মধ্যে আবার ১০টিই ছিল টপ টেন লুজার বা দরপতনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির তালিকায়। বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, জেড শ্রেণির কিছু কোম্পানির শেয়ারের দাম যেভাবে অস্বাভাবিক হারে বাড়ছিল, সেটির লাগাম টানতে না পারলে পুরো বাজারই তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হতো। তাই দেরিতে হলেও বিএসইসির নেওয়া এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে গতকাল অনলাইনে বিএসইসি, বাংলাদেশ ব্যাংক, টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিসহ সরকারি বিভিন্ন নিয়ন্ত্রক সংস্থার মধ্যে অনুষ্ঠিত সমন্বয় সভায় মুদ্রাবাজার ও পুঁজিবাজারের সুশাসনের বিষয়ে ঐক্যমত্য প্রকাশ করা হয়।

বৈঠকে আর্থিক বাজারের সুশাসন নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও বিএসইসি আরও নিবিড়ভাবে কাজ করতে সম্মত হয়েছে। বৈঠক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। এ ছাড়া বৈঠকে ব্যাংক ও পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা ব্যবসা সহজীকরণে সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়ার বিষয়েও সম্মত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তালিকাভুক্তির পরপরই বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ না দেওয়া বা নো লভ্যাংশ ঘোষণা করা এক্সপ্রেস ইনস্যুরেন্সের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে গতকাল জরুরি বৈঠক করেছে বিএসইসি। বৈঠকে তালিকাভুক্তির পরপরই মুনাফা করার পরও বিনিয়োগকারীদের কোনো লভ্যাংশ না দেওয়ার ঘটনায় বিএসইসির পক্ষ থেকে কারণ জানতে চাওয়া হয়।

গত মাসে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়া কোম্পানিটি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে সমাপ্ত আর্থিক বছরের জন্য বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তবে বৈঠকের পর কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের সুখবর দেওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করেছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন