বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত বৃহস্পতিবার মুন্সিগঞ্জ থেকে এমভি প্রিমিয়ার নামে একটি নৌযান ১০ টন বা ২০০ ব্যাগ প্রিমিয়ার সিমেন্ট নিয়ে যাত্রা শুরু করে রাত সাড়ে ১২টা নাগাদ কুমিল্লার দাউদকান্দি এসে পৌঁছায়। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার পালপাড়া সেতুর কাছে পৌঁছায় বাংলাদেশ ও ভারতের পতাকাবাহী এই ট্রলার। ওই এলাকায় গোমতী নদীতে স্রোত বেশি থাকায় বিশেষ ব্যবস্থায় নৌযানটি পার করা হয়।

গতকাল শনিবার ভোর সাড়ে পাঁচটায় আবার নৌযানটি সীমান্তের উদ্দেশে রওনা হয়। কিন্তু কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার পাঁচথুবী ইউনিয়নের গোলাবাড়ি এলাকায় গোমতী নদীতে গভীরতা কম থাকায় পণ্যবাহী ট্রলারটি সকাল সাড়ে আটটার দিকে আটকে যায়। এরপর ট্রলার থেকে কিছু সিমেন্টের বস্তা নামানো হয়। আবার যাত্রা শুরু হয়। এরপর বাংলাদেশ অংশ থেকে ট্রলারকে বিদায় জানানো হয়। ভারতের সোনামুড়ায় ঘটা করে অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে পণ্যের চালান গ্রহণ করা হয়।

সীমান্তের ১০০ মিটার আগে নাব্যতা খুব কম থাকায় ট্রলারটি আটকে যায়। এখন নাব্যতা ঠিক করতে উদ্যোগ নেওয়া হবে।
রফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) পরিচালক

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) পরিচালক রফিকুল ইসলাম গত রাতে প্রথম আলোকে বলেন, ‘সীমান্তের ১০০ মিটার আগে নাব্যতা খুব কম থাকায় ট্রলারটি আটকে যায়। বহুকষ্টে ট্রলারটি সীমান্ত পার করা হয়। পরীক্ষামূলক চালান পাঠাতে কোথায় কোন সমস্যা, তা জানা গেল। এখন নাব্যতা ঠিক রাখতে উদ্যোগ নেওয়া হবে।’

এ উপলক্ষে বাংলাদেশ সীমান্তে আনুষ্ঠানিকতা ছিল। কুমিল্লা জেলার আদর্শ সদর উপজেলার বিবিরবাজার স্থলবন্দর এলাকায় বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক বেলুন উড়িয়ে সিমেন্ট বোঝাই ট্রলারকে বিদায় জানান। এ সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি; কুমিল্লা কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট বেলাল হোসাইন চৌধুরী; কুমিল্লার জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর; পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলামসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের বিবিরবাজার স্থলবন্দর দিয়ে আগে ট্রাকে করে পণ্য আমদানি–রপ্তানি হতো। আজ থেকে নৌপথে যাত্রা শুরু হলো।
রীভা গাঙ্গুলি, ভারতীয় হাইকমিশনার

ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, বাংলাদেশের বিবিরবাজার স্থলবন্দর দিয়ে আগে ট্রাকে করে পণ্য আমদানি–রপ্তানি হতো। আজ থেকে নৌপথে যাত্রা শুরু হলো। নৌপথ পুরোদমে চালু হলে তা হবে পরিবেশবান্ধব ও সাশ্রয়ী। করোনাকালেও ব্যবসা-বাণিজ্য অব্যাহত থাকায় দুই দেশই উপকৃত হচ্ছে।

দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সোনামুড়া এলাকায় গোমতী নদীর পাড়ে একটি অস্থায়ী জেটিতে চালান খালাস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা হয়।

এতে বক্তব্য রাখেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব, স্থানীয় সাংসদ প্রতিমা ভৌমিক, বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি, আগরতলায় বাংলাদেশের সহকারী হাইকমিশনার কিরীত চাকমা, ল্যান্ডপোর্ট অথোরিটি অব ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান আদিত্য মিশ্র।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন