বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সায়েদুজ্জামানের সভাপতিত্বে প্রকাশনা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সিপিডির বিশেষ ফেলো ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী রওনক জাহান। অনলাইনে যুক্ত হয়ে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ও গণফোরামের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

অনুষ্ঠানে রেহমান সোবহান বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে নিজের স্মৃতি তুলে ধরে বলেন, সদ্য স্বাধীন দেশে পরিকল্পনা কমিশন নিজের মতো মতামত দিত, কিন্তু বাস্তব পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে রাজনৈতিকভাবে বঙ্গবন্ধু সব সিদ্ধান্ত নিতেন। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক অর্থনীতির প্রখর জ্ঞান ছিল বাস্তবভিত্তিক। তাজউদ্দীন আহমদেরও এ বিষয়ে ভালো জ্ঞান ছিল। নীতি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে যে পূর্বাপর বিবেচনা করতে হয়, তার শিক্ষা তাঁদের কাছ থেকে পেয়েছেন তিনি।

default-image

অনুষ্ঠানে আরও আলোচনা করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আবদুল বায়েস, ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহ্ফুজ আনাম, জ্ঞানতাপস আব্দুর রাজ্জাক বিদ্যাপীঠের মহাপরিচালক অধ্যাপক আহরার আহমেদ, সংযুক্ত আরব আমিরাতের জায়েদ ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক হাবিবুল হক খন্দকার, রিসার্চ ইনিশিয়েটিভস বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক মেঘনা গুহঠাকুরতা, সিপিডির বিশেষ ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান ও দ্য ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেডের (ইউপিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহারুখ মহিউদ্দিন।

রেহমান সোবহানের আত্মজীবনীমূলক নতুন বই সম্পর্কে ড. কামাল হোসেন বলেন, এ বই বাংলাদেশের রাষ্ট্র গঠনের ইতিহাসের একটি অংশ ধারণ করেছে। রেহমান সোবহান যেমন বিদ্যায়তনের মানুষ ছিলেন, তেমনি রাজনৈতিক প্রক্রিয়ারও মানুষ ছিলেন। ফলে দুই জগতের সম্পর্ক তিনি চমৎকারভাবে তুলে আনতে পেরেছেন।

স্বাধীনতার অব্যবহিত পরের সময় নিয়ে বেশি কিছু লেখা কিংবা গবেষণা হয়নি বলে জানান অনুষ্ঠানের সঞ্চালক রওনক জাহান। তিনি বলেন, এই বই সে ক্ষেত্রে প্রাথমিক উৎস হতে পারে।

স্বাধীন বাংলাদেশকে কীভাবে এগিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা ছিল, তার রূপরেখা এ বইয়ে উঠে এসেছে বলে মন্তব্য করেন ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহ্ফুজ আনাম। তিনি আরও বলেন, রাজনীতিকদের সঙ্গে বুদ্ধিজীবীদের যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল একসময়, তার চিত্র এ বইয়ে পাওয়া যায়। বঙ্গবন্ধু পেশাদারদের কাছ থেকেই শোষণমুক্ত সমাজতান্ত্রিক দেশের রূপরেখা চেয়েছিলেন।

অনুষ্ঠানের নির্ধারিত আলোচকেরা বইটির বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন। সিপিডির বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধুর সময় থেকেই নীতি প্রণয়নকারী, রাজনীতিক ও আমলাদের মধ্যে যে ত্রিমুখী দ্বন্দ্ব ছিল, তা এই বইয়ে উঠে এসেছে, যা এখনো দেখা যায়।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, রেহমান সোবহানের আত্মজীবনীর তৃতীয় খণ্ডও ভবিষ্যতে প্রকাশিত হবে। সেখানে দেশের ও নিজের সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ আরও তথ্য তুলে ধরবেন তিনি।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন