মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশের চার কারখানা ইডব্লিউএম গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান পিককের কাছে তৈরি পোশাক রপ্তানি করলেও প্রতিষ্ঠানটি পোশাকের মূল্য পরিশোধ করছে না। ইডব্লিউএম গ্রুপের গ্রুপের ভাষ্যমতে, পিকক যুক্তরাজ্যের দেউলিয়া আদালতে নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা করার আবেদন করে। তারপর পিউরপে ও এনগ্লো গ্লোবাল নামের দুটি নতুন কোম্পানি পিকককে কিনে নেয়। সে কারণে তারা (ইডব্লিউএম) পুরোনো দেনা পরিশোধে বাধ্য নয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, পিউরপে ও এনগ্লো গ্লোবাল—দুটিই ইডব্লিউএম গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান। গ্রুপটির মূল মালিক ব্রিটিশ বিলিয়নিয়ার ফিলিপ অ্যাডওয়ার্ড ডে। ইডব্লিউএম গ্রুপের কাছে ২০১৯ সালের ২ মার্চ পর্যন্ত মুনাফার ২৬৭ কোটি ৩০ লাখ টাকা ছিল। নগদ ছিল ১ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা। ফলে ৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা কেন ইডব্লিউএম পরিশোধ করতে পারবে না এটা বোধগম্য নয়। একই গ্রুপের একটি কোম্পানিকে দেউলিয়া ঘোষণা করে গ্রুপের অন্য দুই কোম্পানির মাধ্যমে ক্রয় করে সব পাওনাদারকে বঞ্চিত করা প্রতারণা ছাড়া কিছুই নয়।

ডিজাইনটেক্স নিটওয়্যার ও ডিজাইনটেক্স ফ্যাশনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দকার রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, আমরা ৪ লাখ ৭০ হাজার ডলারের (৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা) টিশার্ট ও সোয়েটার ২০১৯ সালের শেষ অথবা ২০২০ সালের শুরুর দিকে রপ্তানি করি। পিকক কর্তৃপক্ষ আমাদের পণ্যও তাদের বন্দর থেকে বুঝে নেয়। তারপর বহুবার দেনদরবার করেও আমরা অর্থ বুঝে পাইনি। ইডব্লিউএম পাওনা অর্থ বুঝিয়ে না দিলে পিকক ও তাদের সহযোগী ব্র্যান্ডের জন্য পোশাক রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞার আরজি জানিয়েছি আমরা।

৭৪ বছরের পুরোনো ইডব্লিউএম গ্রুপের মালিকানায় আছে পিকক, কান্ট্রি ক্যাজুয়াল, অস্টিন রেডসহ পোশাকের বেশ কিছু ব্র্যান্ড। করোনার প্রথম ধাক্কায় বড় ধরনের লোকসানের মুখে পড়ে গ্রুপটি।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন