পোশাকশিল্পের ভাবমূর্তি উন্নয়নই বড় চ্যালেঞ্জ: সিদ্দিকুর

বিজ্ঞাপন
default-image

রুবানা হকের নেতৃত্বে তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর নতুন পরিচালনা পর্ষদ দায়িত্ব নেবে আগামী শনিবার। সংগঠনের বর্তমান সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন, দেশে–বিদেশে তৈরি পোশাকশিল্পের ভাবমূর্তি উন্নয়ন করাই নতুন কমিটির জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

রাজধানীর উত্তরায় নির্মাণাধীন বিজিএমইএ কমপ্লেক্সে গতকাল বুধবার দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বর্তমান কমিটির সাফল্য-ব্যর্থতা, সংগঠনের দপ্তর স্থানান্তরসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। মতবিনিময় সভায় সংগঠনের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ফারুক হাসান, সহসভাপতি এস এম মান্নান, মাহমুদ হাসান খান, মোহাম্মদ নাছির প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

দুই বছরের জন্য দায়িত্ব নিলেও বিজিএমইএর বর্তমান কমিটি শেষ পর্যন্ত ৩ বছর ৭ মাস দায়িত্ব পালন করেছে। ৬ এপ্রিল সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচনী জোট সম্মিলিত পরিষদ ও ফোরাম পূর্ণ প্যানেল জয়ী হয়। সভাপতি নির্বাচিত হন রুবানা হক। আগামী শনিবার বর্তমান কমিটির শেষ কর্মদিবস।

মতবিনিময় সভায় বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান কারওয়ান বাজারের অবৈধ ভবন থেকে উত্তরার বৈধ ভবনে সংগঠনের কার্যক্রম স্থানান্তর করাকে বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের বড় সাফল্য হিসেবে উল্লেখ করেন। এ ছাড়া মিরসরাইয়ে পোশাকশিল্প পার্কের জন্য ৫০০ একর জমি বরাদ্দ পাওয়াও বড় সাফল্য মনে করেন তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে বিজিএমইএর সভাপতি দাবি করেন, তাঁর নেতৃত্বাধীন বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের ব্যর্থতা নেই। তিনি বলেন, ‘আমি কাজের জন্য কোনো জায়গায় গিয়ে কখনো ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসি নাই।’

জমির স্বত্ব না থাকা এবং জলাধার আইন লঙ্ঘন করায় হাতিরঝিল প্রকল্প এলাকায় বিজিএমইএর পুরোনো ভবনটি উচ্চ আদালতের নির্দেশে ভেঙে ফেলতে হবে। ভবনটি ছাড়তে ১২ এপ্রিল পর্যন্ত বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষকে সময় দিয়েছিলেন আদালত। সে জন্য গত শনিবার পুরোনো ভবন থেকে মালপত্র নতুন ভবনে স্থানান্তর করে তারা। সোমবার উত্তরায় দাপ্তরিক কাজ শুরু হয়।

পুরোনো ভবন নিয়ে বিজিএমইএ সভাপতির দুঃখবোধ আছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘গত ৩ এপ্রিল ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উত্তরার ভবন উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কারওয়ান বাজারের জায়গাটি তিনিই দিয়েছিলেন। তবে জমির স্থান বুঝিয়ে দিতে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) গন্ডগোল করেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন সোনারগাঁও হোটেলের রাস্তার পাশে দেওয়ার জন্য। ইপিবি আমাদের দিয়েছে ঝিলের মধ্যে। ভুলটা আসলে ইপিবির।’ তিনি বলেন, ‘পুরোনো ভবন নিয়ে অবশ্যই আমাদের দুঃখ–বেদনা থাকবে। কারণ, ১৪-১৫ বছর সেখানে আমরা অফিস করেছি।’

এদিকে বিজিএমইএর সভাপতি কারওয়ান বাজারের ভবন ছাড়তে আরও এক বছর সময় চেয়ে আবেদন করেছেন দাবি করে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তা প্রত্যাহার চেয়ে গতকাল আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। অন্যথায় সভাপতির বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন করা হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়। এ নিয়ে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘আমি আবেদন করি নাই। যদি কেউ আবেদন করে থাকে, তাহলে আদালতের কাছে আপনাদের (সাংবাদিক) মাধ্যমে বিচার চাচ্ছি। কারা কীভাবে আবেদন করল?’

হাতিরঝিলের ভবন ভাঙার খরচ বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে আদায় করতে রাজউকের প্রতি নির্দেশনা দিয়েছিলেন উচ্চ আদালত। এ বিষয়ে বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা পরে চিন্তাভাবনা করব। সরকারের সঙ্গেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে হবে।’

হাতিরঝিলের ভবন গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তালা লাগিয়ে দেয় রাজউক। এতে ভবনে থাকা বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানই তাদের সব মালপত্র সরিয়ে নিতে পারেনি। জেনারেটর, শীতাতপনিয়ন্ত্রিত যন্ত্র, লিফটসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র সরাতে পারেনি বিজিএমইএ। সব প্রতিষ্ঠান যেন নিজেদের জিনিসপত্র সরিয়ে নিতে পারে, সে ব্যবস্থা করবেন বলেও জানান বিজিএমইএ সভাপতি।

লিখিত বক্তব্যে পোশাক রপ্তানিতে আগামী এক বছরের জন্য ৫ শতাংশ নগদ সহায়তার দাবি করেন বিজিএমইএ সভাপতি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন