বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে ইভ্যালির একটা গ্রাহক ভিত্তি যেহেতু তৈরি হয়েছে, ফলে এটাকে ধ্বংস না করেও কাজে লাগানো যায়। ইভ্যালিসহ দুর্বল কোম্পানিগুলোতে প্রশাসক বসানো যায়। প্রতিষ্ঠানগুলোর মূল্যায়নও করা যেতে পারে। মূল্যায়িত হলে দায় মেনে নিয়েও দেশি-বিদেশি যেকোনো কোম্পানি আকৃষ্ট হতে পারে। এটা ই-কমার্সের শুরুর দিক এবং এত দিন দেখভাল করার মতো নিয়ন্ত্রণমূলক সংস্থা ছিল না। ফলে কোনো নিয়ন্ত্রণও ছিল না। আবার বলছি, এটা উদীয়মান খাত। এখন এই খাতকে ভালোভাবে দেখার জন্য সরকারের একটি দপ্তর থাকতে পারে।

সুবর্ণ বড়ুয়া, সহযোগী অধ্যাপক, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন