বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বন্ডের মাধ্যমে সংগ্রহ করা এ অর্থ প্রাণ এগ্রো কুলিনারি খাতে বিনিয়োগ করবে। এরই মধ্যে ব্যবসা সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়ে গেছে। বন্ডের টাকায় সেই কাজ সম্পন্ন করা হবে।

জানা গেছে, এককভাবে বেসরকারি কোনো কোম্পানির বন্ডে মেটলাইফ বাংলাদেশের এটির সর্বোচ্চ বিনিয়োগ। আবার ব্যাংক খাতের বাইরে বেসরকারি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বন্ডের মাধ্যমে একটি বিমা কোম্পানির কাছ থেকে এককভাবে এ পরিমাণ অর্থ সংগ্রহের উদাহরণও খুব বেশি নেই।

জানতে চাইলে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক (করপোরেট ফাইন্যান্স) উজমা চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, বন্ডের মাধ্যমে সংগ্রহ করা এ অর্থ প্রাণ এগ্রো কুলিনারি খাতে বিনিয়োগ করবে। এরই মধ্যে ব্যবসা সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়ে গেছে। বন্ডের টাকায় সেই কাজ সম্পন্ন করা হবে। উজমা চৌধুরী আরও বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বন্ডের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ হয়। বাংলাদেশেও বিনিয়োগের নতুন এ মাধ্যমটি তৈরি হচ্ছে। এর ফলে যার হাতে টাকা আছে  সেই বিনিয়োগ করতে পারবে।

default-image

প্রাণ এগ্রোর বন্ডের প্রতিটি ইউনিটের অভিহিত মূল্য বা ফেসভ্যালু নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ লাখ টাকা। বন্ড হচ্ছে এক ধরনের ঋণপত্র। এ ঋণপত্র বিক্রি করে এক প্রতিষ্ঠান অন্য প্রতিষ্ঠান ও সম্পদশালী ব্যক্তির কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে ব্যবসার প্রয়োজনে যারা বন্ডে বিনিয়োগ করেন তাদের নির্ধারিত হারে সুদ দেওয়া হয়, এ সুদ হারকে কুপন রেটও বলে। মেয়াদি বন্ডের ক্ষেত্রে মেয়াদ শেষে বিনিয়োগকারী তার বিনিয়োগ করা মূল অর্থ ফেরত পান।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন