বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খাদ্য ও খাদ্য বহির্ভূত-দুই খাতেই মূল্যস্ফীতির হার বেড়েছে। ডিসেম্বরে খাদ্য মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে ৫ দশমিক ৪৬ শতাংশ হয়েছে। আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৪৩ শতাংশ। খাদ্য বহির্ভূত মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে সাত শতাংশে ঠেকেছে। আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ২০২০ সালের ডিসেম্বরে গড় মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ২৯ শতাংশ। আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ। তারও আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৫ দশমিক ৩৫ শতাংশ। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ছিল ৫ দশমিক ৮৩ শতাংশ। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে ৫ দশমিক ০৩ শতাংশ। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে ছিল ৬ দশমিক ১০ শতাংশ।

বিবিএস বলছে, গত কয়েক মাস থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ছে। ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য বৃদ্ধির কারণে প্রভাব পড়েছে পরিবহন খাতে। ফলে খাদ্য বহির্ভূত পণ্যের দামে আরও বেড়েছে।

বিবিএস বলছে, গ্রামাঞ্চলে ডিসেম্বর মাসে গড় মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৬ দশমিক ২৭ শতাংশ হয়েছে, আগের মাসে যা ছিল ৬ দশমিক ২০ শতাংশ। খাদ্য মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে ৫ দশমিক ৯৩ শতাংশ হয়েছে, আগের মাসে যা ছিল ৫ দশমিক ৯০ শতাংশ। খাদ্য বহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ হয়েছে। আগের মাসে যা ছিল ৬ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

অন্য দিকে ডিসেম্বর মাসে শহরাঞ্চলে খাদ্য ও খাদ্য বহির্ভূত মূল্যস্ফীতি দুটোই বেড়েছে। গড় মূল্যস্ফীতির হার নভেম্বরে যেখানে ছিল ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ, ডিসেম্বরে তা বেড়ে ৫ দশমিক ৬৬ শতাংশ হয়েছে। খাদ্য পণ্যের মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে ৪ দশমিক ৪১ শতাংশ হয়েছে, আগের মাসে যা ছিল ৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ। আর খাদ্য বহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৭ দশমিক ০৭ শতাংশ হয়েছে, আগের মাসে যা ছিল ৬ দশমিক ৯৯ শতাংশ।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন