বস্ত্র খাতের টেকসই উন্নয়নে ৫০ কোটি ডলারের বিশেষ তহবিল গঠন করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। দেশে পরিবেশবান্ধব শিল্পকারখানা গড়ে তোলার কাজে ব্যয় করা হবে এ তহবিলের অর্থ।
বেসরকারি গবেষণাপ্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত এক সেমিনারে গতকাল শনিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, এটি হবে একটি পুনঃ অর্থায়ন তহবিল; যা থেকে ১০ শতাংশ সুদে উদ্যোক্তাদের ঋণ দেওয়া হবে। এর মধ্যে সরকার ভর্তুকি বাবদ ৬ শতাংশ সুদের সমপরিমাণ অর্থ দেবে। ফলে গ্রাহক পর্যায়ে সুদের হার দাঁড়াবে ৪ শতাংশ। তহবিলটির নাম ‘সবুজ রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল-২’ হতে পারে বলে গভর্নর উল্লেখ করেন।
‘বস্ত্র খাতের টেকসই উন্নয়নে অর্থায়নের সুবিধা’ শীর্ষক এ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর। সংস্থাটির ঢাকার বনানীর কার্যালয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
আতিউর রহমান বলেন, ‘নারী উদ্যোক্তাদের জন্য পুনঃ অর্থায়ন তহবিল যেভাবে জনপ্রিয় করা হয়েছে, সেভাবে সবুজ অর্থায়নের উদ্যোগটিও জনপ্রিয় করা সম্ভব। বস্ত্র খাতকে আমরা সবুজ শিল্প হিসেবে পরিচিত করব। এটি করতে পারলে বাংলাদেশের রপ্তানি খাতের ভবিষ্যৎ আরও ভালো হবে। ২০২১ সালের মধ্যে আমরা পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে পাঁচ হাজার কোটি ডলার আয় করতে চাই।’ তিনি জানান, দেশে বর্তমানে পুনঃ অর্থায়ন তহবিলের আওতায় ৪৭ ধরনের আর্থিক কার্যক্রমে সুবিধা দেওয়া হয়। ২০১৬ সালের মধ্যে সব আর্থিক প্রতিষ্ঠান তাদের ঋণের কমপক্ষে ৫ শতাংশ পরিবেশবান্ধব অর্থায়ন খাতে বিতরণ করবে।
গবেষণাপ্রতিষ্ঠান সিপিডির নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, অনেক প্রতিষ্ঠান আছে, অর্থের অভাবে টেকসই উন্নয়নে পর্যাপ্ত অবকাঠামো তৈরি করতে পারে না। এমন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে এ ধরনের সহায়তা দেওয়া উচিত। তিনি মনে করেন, টেকসই রপ্তানি খাতের জন্য মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে হবে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা আখতারুজ্জামান মনে করেন, টেকসই উন্নয়নের বিষয়টি সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বিস্তারিত থাকা দরকার।
ফাইন্সিয়াল এক্সিলেন্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান মামুন রশিদ বলেন, অতীতে পুনঃ অর্থায়ন তহবিলের অনেক অপব্যবহার হয়েছে।
সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ওয়াটার প্যাক্টের কর্মসূচি ব্যবস্থাপক মৃণাল সরকার, বিজিএমইএর সাবেক সহসভাপতি ফারুক হাসান, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবরার এ আনোয়ার প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন