পশ্চিমবঙ্গের হিলসা ফিশ ইম্পোটার্স অ্যাসোসিয়েশন দক্ষিণ আমেরিকার উরুগুয়ে থেকে বাংলাদেশের ইলিশ সদৃশ ‘রুপালি’ মাছ আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে। তাঁরা এই মাছের নাম দিয়েছে ‘রূপসী’।
বাংলাদেশি ইলিশ না পাওয়ার কারণে কলকাতার ব্যবসায়ীরা ইলিশের বিকল্প বা পরিপূরক মাছের খোঁজে মিয়ানমার ও ওমানের পর এবারে উরুগুয়ে পর্যন্ত গেলেন। বাংলাদেশ সরকার ২০১২ সালে পশ্চিমবঙ্গে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করেছে। এরপর ভারত সরকার কলকাতার ব্যবসায়ীদের মিয়ানমার থেকে ইলিশ আমদানির অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু মিয়ানমারের ইলিশ বাজার পায়নি। কারণ স্বাদে এটি বাংলাদেশের পদ্মার ইলিশের ধারেকাছেও নেই।
ভারত সরকার মিয়ানমারের পর মধ্যপ্রাচ্যের ওমান থেকে ইলিশ সদৃশ ‘চকোরি’ মাছ আমদানির অনুমতি দেয়। কিন্তু সেটিও তেমন স্বাদের নয়। তাই এর চাহিদাও তৈরি হয়নি।
পশ্চিমবঙ্গ হিলসা ফিশ ইম্পোটার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অতুল দাস প্রথম আলোকে জানান, ‘রূপসী’ মাছ দেখতে ইলিশের মতো। এটি উরুগুয়ের গভীর সমুদ্রে পাওয়া যায়। প্রথম পর্যায়ে ২৫ টন মাছ আনা হচ্ছে। ওজন হয়ে থাকে ৪০০ থেকে ৬০০ গ্রাম। দামও ইলিশের চেয়ে অনেক কম পড়বে, প্রতি কেজি ২০০-২৫০ রুপি। শিগগির এ মাছ কলকাতা ও হাওড়াসহ রাজ্যের বিভিন্ন বাজারে পাওয়া যাবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0