ভারতের প্রবৃদ্ধি আরও কমতে পারে: রঘুরাম রাজন

বিজ্ঞাপন
default-image

এপ্রিল-জুন প্রান্তিকে ভারতের জিডিপি সংকোচন হয়েছে ২৩ দশমিক ৯ শতাংশ। কিন্তু এখানেই শেষ নয়, আরও নামতে পারে আর্থিক প্রবৃদ্ধির হার, বলছেন ভারতের রিজার্ভ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ রঘুরাম রাজন।

জিডিপির এই চিত্রকে ‘উদ্বেগজনক’ উল্লেখ করে রাজন সামাজিক মাধ্যম লিঙ্কড ইনে তিন পৃষ্ঠার নোট লিখেছেন রঘুরাম রাজন। তিনি দেখিয়েছেন, যেসব দেশে করোনার সংক্রমণ আরও বেশি, তাদের চেয়েও ভারতের অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ। দেশটির সরকার যে ২০ লাখ কোটি রুপির আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে, সেটাও যথেষ্ট নয় বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদ রাজন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথম প্রান্তিকের (এপ্রিল থেকে জুন) প্রায় পুরো সময়টাই লকডাউনের মধ্য দিয়ে গেছে। সে জন্যই প্রবৃদ্ধির এমন ভয়াবহ চিত্র। কিন্তু এখন আর্থিক কার্যক্রম চালু হয়েছে। গতি এসেছে অর্থনীতিতে। ফলে অর্থনীতিবিদদের একাংশের মতে, দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে এই হার কিছুটা বাড়তে পারে বা অন্তত এর নিচে নামবে না।

কিন্তু রঘুরাম রাজনের মতে তেমনটা হওয়ার সম্ভাবনা কম। তিনি মনে করেন, প্রবৃদ্ধির হার আরও কমতে পারে। লিঙ্কড ইনের ওই নোটে রিজার্ভ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর লিখেছেন, এর সঙ্গে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের লোকসান যোগ করে জিডিপি প্রবৃদ্ধির প্রকৃত পরিসংখ্যান প্রকাশিত হলে চিত্র আরও করুণ হতে পারে। অর্থাৎ জিডিপির ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধির হার আরও বেশি হতে পারে।

রাজনের যুক্তি, ‘মহামারি ভারতে এখনো মারাত্মক অবস্থায় আছে। তাই বিলাসী খরচ, যেমন রেস্তোরাঁয় খাওয়ার মতো খরচ মানুষ এখন করবে না। ভাইরাস যত দিন থাকবে, এই সব খাতের খরচে রাশ টানবে সাধারণ মানুষ।’ অর্থনীতির এই রোগ যে সহজে নির্মূল হওয়ার নয়, তেমনটাই মনে করেন রাজন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাস ও লকডাউনের জের মোকাবিলায় আত্মনির্ভর ভারত অভিযান প্রকল্পে ২০ লাখ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু সেই প্যাকেজ যথেষ্ট নয় বলেই মত রাজনের। তিনি লিখেছেন, গরিবদের বিনা মূল্যে খাদ্যসামগ্রী দেওয়া, অতিক্ষুদ্র, মাঝারি ও ক্ষুদ্রশিল্পের জন্য ব্যাংক ঋণের বন্দোবস্ত করে সাধারণ মানুষকে যে সুরাহা দেওয়ার চেষ্টা সরকার করেছে, তা প্রয়োজনের তুলনায় নগণ্য।

অর্থনীতিকে রোগের সঙ্গে তুলনা করে রাজন লিখেছেন, ‘আর্থিক প্যাকেজ একটা টনিক ছিল। কিন্তু যখন রোগী মরণাপন্ন, তখন টনিক কাজ করবে না।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন