default-image

বাংলাদেশে কার্ড সেবা পরিচালনার ২৮ বছর উদ্‌যাপন করেছে মাস্টারকার্ড। এ উপলক্ষে প্রথমবারের মতো আয়োজিত পেমেন্ট সামিটে দেশের ব্যাংকগুলোকে দেওয়া হয় পুরস্কার। রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে গতকাল মঙ্গলবার রাতে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আহমেদ জামাল, অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের চেয়ারম্যান সৈয়দ মাহবুবুর রহমান প্রমুখ। বক্তব্য দেন মাস্টারকার্ডের এ দেশীয় ব্যবস্থাপক সৈয়দ মোহাম্মদ কামালসহ প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে মাস্টারকার্ডের ২৮ বছরের পথচলা তুলে ধরা হয়। পাশাপাশি নগদ অর্থ লেনদেন ছাড়াই দেশে দক্ষ ও নিরাপদ অর্থ পরিশোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে মাস্টারকার্ডের ভূমিকা তুলে ধরা হয়। অনুষ্ঠান শেষ হয় গালা নাইট অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে। এ সময় মাস্টারকার্ডের পার্টনার সেরা ব্যাংকগুলোকে নতুন নতুন উদ্ভাবন ও ‘নগদবিহীন’ সমাজ গড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার জন্য পুরস্কৃত করা হয়।

বাংলাদেশের ২০টি ব্যাংকের সঙ্গে অংশীদারত্বের ভিত্তিতে কাজ করেছে মাস্টারকার্ড। ব্যাংকগুলো হচ্ছে এবি, ব্যাংক এশিয়া, আল-আরাফাহ্‌ ইসলামী, ব্র্যাক, ঢাকা, ডাচ্‌-বাংলা, ইস্টার্ন, ইসলামী, লংকা-বাংলা ফিন্যান্স, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, ন্যাশনাল, এনসিসি, প্রিমিয়ার, প্রাইম, পূবালী, সোশ্যাল ইসলামী, সাউথইস্ট, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড, সিটি ও ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আর্থিক বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম বলেন, মাস্টারকার্ড যে ২৮ বছর ধরে সেবা দিচ্ছে এটা জানা ছিল না। আমি ভেবেছিলাম মাস্টারকার্ড বাংলাদেশে সেবা দেওয়া শুরু করবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার প্রতিটি ক্ষেত্রে ডিজিটালাইজেশন ও নতুনত্ব আনতে কাজ করছে বলে জানান তিনি।

মাস্টারকার্ডের এ দেশীয় ব্যবস্থাপক সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল বলেন, ‘যাত্রার শুরু থেকে আর্থিক লেনদেনকে আরও নিরাপদ ও সহজতর করে এ দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিকে আরও গতিশীল করতে কাজ করে যাচ্ছি আমরা।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0