default-image

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগে লাভ-ক্ষতি দুই-ই আছে। অর্থাৎ ঝুঁকি স্পষ্ট। ঝুঁকির কথা বলতে গেলে প্রথমেই মনে রাখতে হবে ঝুঁকিহীন কোনো বিনিয়োগ পৃথিবীতে নেই। জন্মের পর মৃত্যুর নিশ্চয়তা শতকরা ১০০ ভাগ। বাকি কোনো কিছুরই নিশ্চয়তা নেই। কথাটা হয়ত দার্শনিক। তবে এই সত্য কথার ভেতর মারপ্যাঁচ নেই। আপনি যেকোনো কিছুতেই বিনিয়োগ করেন না কেন, ক্ষতির ঝুঁকি আছে। আর একটা দার্শনিক সত্যি, সবাই জানেন যে ঝুঁকির সঙ্গে লাভের একটা ধনাত্মক সম্পর্ক আছে। ঝুঁকি বেশি হলে লাভের সম্ভাবনা থাকে, তবে ঝুঁকি নেওয়ার আগে ঝুঁকির পরিমাপ চাই। 

কত টাকা বিনিয়োগ করবেন বা কতটা ঝুঁকি নেবেন, তা হিসাব করে নেন। দৈনন্দিন ব্যয় মেটানোর পর আপনার কত টাকা উদ্বৃত্ত থাকে? আপনার বয়স কত? স্ত্রী, পুত্র-কন্যা, মা-বাবার শরীর কেমন? অসুস্থ হলে ডাক্তার সাহেবকে দেওয়ার জন্য কত টাকা লাগবে? আপনি নিজে ডাক্তার হলেও হিসাবটা করবেন। আমাদের মধ্যে খুব কম মানুষের জীবনবিমা আছে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা আর আপনার জীবনের বিনোদনের জন্য টাকা আলাদা করুন। সেই টাকা সবচেয়ে কম ঝুঁকির জায়গায় রেখে দিন। লাভ কম হবে। কিন্তু ঝুঁকির একটা ব্যবস্থা হলো। জাতীয় সঞ্চয়পত্র, বিদেশে অর্থাগম হলে ওয়েজ আর্নার বন্ড ইত্যাদিতে রেখে দিন। যেহেতু গুরুত্বপূর্ণ, সেহেতু আবার বলি, শূন্য ঝুঁকি বলে কিছুই নেই। কোনো কোনো বইতে ঝুঁকি কম বলে সরকারি বন্ডের কথা পাবেন। কিন্তু ইংল্যান্ডের মতো অর্থনৈতিক সুসংহত দেশেও সরকারি বন্ডের ফেল করার উদাহরণ আছে। সঞ্চয়পত্রকে বিশ্বাস করি। তবে মনে রাখতে হবে যে সঞ্চয়পত্রের লাভ যদি মূল্যস্ফীতির চেয়ে কম হয়, তবে সেখানেও আমরা পুঁজি হারাচ্ছি। তারপরও বলব, জরুরি প্রয়োজনের জন্য দরকারি টাকা নিয়ে শেয়ারবাজারে আসবেন না। সরকারের ইন্সট্রুমেন্টে রাখুন। শেয়ারবাজার এর পরে। 

দৈনন্দিন খরচাপাতি শেষ করে স্বাস্থ্য-শিক্ষার কথা ভাববেন। বেড়াতে গেলে কত খরচ হবে, তাও দেখলেন। এবার বলেন আপনার বাড়িঘর, শহরে থাকলে একটা ফ্ল্যাট দরকার আছে নাকি। জমি কিনে সমস্যার মধ্যে পড়েননি এমন লোক কম পাবেন। শহুরে ডেভেলপাররা অনেকেই এরই মধ্যে অখ্যাতি কুড়িয়ে ফেলেছেন যে তাঁরা সময়মতো ঠিকমতো ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দেন না। আমার মনে হয়, অতি দরকারি বাসস্থানের জন্য বিনিয়োগ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের চেয়ে কম ঝুঁকিপূর্ণ নয়। খুব সাবধানে বাসস্থানের পেছনে ব্যয় করবেন। মনে রাখবেন যে আজকের এক টাকা কালকের এক টাকার চেয়ে বেশি মূল্যবান। আপনার ফ্ল্যাট পেতে দেরি হলো মানে ফ্ল্যাটের দামই বেড়ে গেল। এসব অতি দরকারি ব্যবস্থা শেষ করার পর উদ্বৃত্ত অর্থ আছে? তা হলে চলেন শেয়ারবাজারে যাই।

বিজ্ঞাপন
বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন