বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিএসইসির রোববারের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সভা শেষে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বিএসইসি। সংস্থাটি জানিয়েছে, শেয়ারবাজারে ‘জেড’ শ্রেণিভুক্ত কোম্পানির শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে কোনো ঋণসুবিধা পাবেন না বিনিয়োগকারীরা। এ ছাড়া নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানির ক্ষেত্রে তালিকাভুক্তির প্রথম ৩০ কার্যদিবস কোনো ঋণসুবিধা মিলবে না। আর ‘জেড’ শ্রেণি থেকে কোনো কোম্পানির শ্রেণিমানের উন্নতি হলে, সে ক্ষেত্রে প্রথম সাত কার্যদিবস কোনো ঋণ মিলবে না। এর বাইরে অন্য যেকোনো শ্রেণিভুক্ত কোম্পানির শ্রেণিমানের উন্নতি হলে, সে ক্ষেত্রে প্রথম কার্যদিবস থেকেই বিদ্যমান হারে ঋণসুবিধা মিলবে। বর্তমান বিধান অনুযায়ী, শেয়ারবাজারের কোনো কোম্পানির শ্রেণিমানের পরিবর্তন হলে, সে ক্ষেত্রে প্রথম ৩০ কার্যদিবস ওই কোম্পানির শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের ঋণসুবিধা পান না বিনিয়োগকারীরা।

ধরা যাক, নতুন তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানি ‘এন’ শ্রেণি থেকে ‘এ’ শ্রেণিতে উন্নীত হয়েছে। বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী, শ্রেণি পরিবর্তনের কারণে প্রথম ৩০ কার্যদিবস ওই কোম্পানির শেয়ার কিনতে কোনো ঋণসুবিধা পাবেন না বিনিয়োগকারীরা। কিন্তু বিএসইসির নতুন নিয়ম অনুযায়ী, এখন থেকে ‘এন’ ও ‘বি’ শ্রেণির কোনো কোম্পানির শ্রেণিমানের উন্নতি হলে ওই কোম্পানির শেয়ার কেনায় প্রথম দিন থেকে ঋণসুবিধা মিলবে। তবে ‘জেড’ শ্রেণি থেকে কোনো কোম্পানি ‘বি’ বা ‘এ’ শ্রেণিতে উন্নীত হলে, সে ক্ষেত্রে প্রথম সাত দিন কোনো ঋণসুবিধা মিলবে না।

বিএসইসি এমন এক সময়ে শেয়ারের বিপরীতে ঋণসুবিধা এ পরিবর্তন আনল, যখন শেয়ারবাজারে দরপতন চলছে। বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, শেয়ারবাজার চাঙা করতে ঋণসুবিধায় এ পরিবর্তন এনেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এর আগে সর্বশেষ গত ১৫ নভেম্বর ঋণসংক্রান্ত নীতি পরিবর্তন করেছিল বিএসইসি। ওই সময় শেয়ারের বিপরীতে বিনিয়োগকারীদের দেওয়া ঋণকে সূচকের বদলে পিই রেশিও (মূল্য আয় অনুপাত) সঙ্গে সমন্বয় করা হয়। ১৫ নভেম্বরের বিধান অনুযায়ী, শেয়ারবাজারের কোম্পানির পিই রেশিও ৪০–এর নিচে থাকলে ওই সব কোম্পানির শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীরা ১০০ টাকার বিপরীতে সর্বোচ্চ ৮০ টাকা ( ১: ০.৮) ঋণসুবিধা নিতে পারবেন। বর্তমানে এ বিধান অনুযায়ী ঋণসুবিধা মিলছে। তার সঙ্গে নতুন করে আরও কিছু সুবিধা যুক্ত হবে কাল থেকে।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন