বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) হলরুমে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় পোলট্রিশিল্পের উদ্যোক্তারা তাঁদের ১১ দফা দাবি তুলে ধরেন। বাংলাদেশ এসএমই ফোরামের সহযোগিতায় বাংলাদেশ পোলট্রি শিল্প ফোরাম এ সভার আয়োজন করে। সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পোলট্রি শিল্প ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা চাষী মামুন। বক্তব্য দেন সরকারের অতিরিক্ত সচিব শেখ রেজাউল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্য ও কৃষি গবেষণা বিভাগের প্রধান লতিফুল বারী এবং ইআরএফ সাধারণ সম্পাদক এস এম রাশিদুল ইসলাম।

সভায় বক্তারা বলেন, দেশের সিংহভাগ মাংসের চাহিদা পূরণ করছে পোলট্রিশিল্প। এ শিল্পের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সোয়া কোটি মানুষ জড়িত। কিন্তু এ শিল্পের অন্যতম কাঁচামাল সয়ামিলের দাম সিন্ডিকেটের মাধ্যমে অস্বাভাবিকভাবে বাড়ানো হয়েছে। একই সঙ্গে বাচ্চার দামও বেড়েছে কয়েক গুণ। কিন্তু ডিম ও মাংসের দাম খামারি পর্যায়ে সেভাবে বাড়েনি। এ কারণে দেশের লাখ লাখ প্রান্তিক খামারি কোটি কোটি টাকার লোকসানে পড়েছেন। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে সরকারের কাছে ১১টি দাবি তুলে ধরেন খামারিরা।

সভায় আরও যেসব দাবি তুলে ধরা হয় তার মধ্যে রয়েছে পোলট্রি ফিড ও বাচ্চার অযৌক্তিক মূল্যবৃদ্ধি বন্ধ করা, পোলট্রিশিল্পের কাঁচামাল, ওষুধ, টিকা এবং খামারিদের ভ্যাট-কর মওকুফ করা, বাজেটে এ খাতের উন্নয়নে বিশেষ বরাদ্দ রাখা, এ শিল্পের অন্যতম কাঁচামাল সয়ামিল রপ্তানি বন্ধ, দীর্ঘমেয়াদি নীতিমালা প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়ন, পোলট্রি খাতকে সিন্ডিকেটমুক্ত করা, খামারিদের আর্থিক ও জীবনের নিরাপত্তায় সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ নির্দেশনা প্রণয়ন, দেশের আট বিভাগে পোলট্রিশিল্প পার্ক স্থাপন ও খামারিদের জন্য বিশেষ বিমাসুবিধা চালু করা।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন