বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সামাজিক বিজ্ঞানের অনেক বড় বড় প্রশ্ন ও প্রসঙ্গে কার্য-কারণ সম্পর্ক ঘিরে আবর্তিত হয়। যেমন, অভিবাসন মানুষের বেতন/মজুরি বা কাজের স্তরে কী প্রভাব ফেলে। উচ্চ শিক্ষা বা শিক্ষার মেয়াদ মানুষের ভবিষ্যৎ আয়ে কীভাবে প্রভাব ফেলে? এ ধরনের প্রশ্নের উত্তর দেওয়া কঠিন, কারণ এসব বিচার করার ক্ষেত্রে গবেষকদের হাতে তুলনামূলক মানদণ্ড থাকে না। অভিবাসন বেশি না হলে বা মানুষ পড়াশোনা বেশি দিন না চালিয়ে গেল কী প্রভাব পড়তে পারে, তা আমরা জানি না। এবারের নোবেলজয়ী দুই অর্থনীতিবিদ দেখিয়েছেন, অভিজ্ঞতাভিত্তিক পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে এসব প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব। আকস্মিক ঘটনা বা নীতিগত পরিবর্তনের কারণে কিছু মানুষের জীবনে ভিন্ন কিছু ঘটছে কি না, তা পর্যবেক্ষণ করাই এই উত্তরের চাবিকাঠি, ঠিক যেমন ওষুধের পরীক্ষা করা হয়। ওষুধের ক্ষেত্রে যা হয় তা হলো, একই ধরনের লক্ষণযুক্ত রোগীদের মধ্যে একদলকে নির্দিষ্ট ওষুধ দেওয়া হয় এবং বাকিদের তা দেওয়া হয় না। তখন দেখা হয়, সেই ওষুধের প্রভাব কী।

ডেভিড কার্ড অভিজ্ঞতাভিত্তিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে দেখেছেন, শ্রমবাজারে ন্যূনতম মজুরি, অভিবাসন ও শিক্ষার কী প্রভাব পড়ে। সেই ১৯৯০ দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে তিনি এ নিয়ে গবেষণা করছেন। তাঁর গবেষণায় অনেক পুরোনো ধ্যান-ধারণার অবসান ঘটেছে। তার স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন