অভিমত: কালোটাকা সাদা

বিশেষ পরিস্থিতির কারণে করদাতাদের ভয় ছিল তখন

বিজ্ঞাপন
default-image

প্রায় সব সরকারের আমলেই কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু খুব একটা সাড়া মেলেনি। সাড়া না মেলার কারণ হচ্ছে, কালোটাকা উপার্জনের সঙ্গে অপরাধমূলক কাজ জড়িত। তাই কেউ চান না, তাঁর অপরাধ বাইরের লোক জানুক। কালোটাকা উপার্জনকারীরা জবাবদিহির আওতায় আসতে চান না। পাচার, চুরি-ডাকতি, ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে তাঁরা কালোটাকা অর্জন করেন। এমনকি সৎ উপায়ে আয় হলেও তা দেখাতে চান না। তাই কোনোবারই কালোটাকা সাদা করায় তেমন উৎসাহ দেখা যায় না। ফলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দিলেও তাতে খুব একটা কাজ হয় না।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২০০৭ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে একবার এমন সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। তখন একটি বিশেষ পরিস্থিতি ছিল। ওই সময় অবশ্য বৈধভাবে আয়, কিন্তু কর নথিতে দেখানো হয়নি, এমন অপ্রদর্শিত আয় ঘোষণায় আনার সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ওই বছরের করহারের সঙ্গে ১০ শতাংশ জরিমানা দিয়ে কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়। তখন বিশেষ পরিস্থিতির কারণে করদাতাদের ভয় ছিল। অপ্রদর্শিত আয় ঘোষণা না দিলে তাঁদের ধরা পড়ার ভয় ছিল। ফলে ওই সময়ে সাত-আট হাজার লোক এ সুযোগ নিয়েছিলেন। এর আগে ও পরে দেওয়া সুযোগগুলোয় তেমন একটা সাড়া পাওয়া যায়নি।


বারবার সুযোগ দেওয়ার ফলে করদাতাদের মধ্যে ধারণা হয়েছে, এমন সুযোগ ভবিষ্যতেও মিলবে। তাঁদের মনোভাব এমন—এখন কালোটাকা সাদা না করলেও চলবে। বারবার এ ধরনের সুযোগ দেওয়ার ফলে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কালোটাকা সাদা করার সুযোগ রাজনৈতিকভাবে পৃষ্ঠপোষকতাপ্রাপ্ত বিশেষ ব্যক্তিরা নিচ্ছেন কি না, তা খতিয়ে দেখা উচিত। এটি কেস-টু-কেস দেখা উচিত। অবশ্য সার্বিকভাবে এমন সুযোগ খুব বেশি লোকজন নেননি।


অতীতে খুব বেশি ব্যক্তি কালোটাকা সাদা করার সুযোগ নেননি। হয়তো এ কারণেই এবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ বিস্তৃত করা হয়েছে। আমি মনে করি, বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া থেকে সরকারের বেরিয়ে আসা উচিত। এতে সৎ করদাতাদের প্রতি অন্যায় করা হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন