টিআইবির গবেষণা

স্থানীয় এমপিরাই ঠিক করেন কারা দরপত্র জমা দেবে

ই-জিপি প্রবর্তন সত্ত্বেও নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি বিদ্যমান। রাজনৈতিকভাবে কাজ নিয়ন্ত্রণ ও ঠিকাদারদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।
রাজনৈতিক প্রভাবে পাওয়া যাচ্ছে না ই-জিপির সুফল

বিজ্ঞাপন
default-image

সরকারি ক্রয়ে ই-জিপির (ই-গভর্নমেন্ট প্রকিউরমেন্ট) প্রবর্তনের ফলে প্রক্রিয়া সহজ হলেও কার্যাদেশ পাওয়ার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্রভাব, যোগসাজশ ও সিন্ডিকেট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। সব ধরনের সরকারি ক্রয়ে ব্যবহৃত না হওয়ার পাশাপাশি নানা রকম সীমাবদ্ধতা থাকায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের একাংশ ই-জিপির মাধ্যমে দুর্নীতির নতুন পথ খুঁজে নিয়েছে।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) ‘সরকারি ক্রয়ে সুশাসন: বাংলাদেশে ই-জিপির কার্যকারিতা পর্যবেক্ষণ’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনে এমনটাই উঠে এসেছে। গতকাল বুধবার এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান, উপদেষ্টা-নির্বাহী ব্যবস্থাপনা সুমাইয়া খায়ের, গবেষণা ও পলিসি বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ রফিকুল হাসান। গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন টিআইবির গবেষণা ও পলিসি বিভাগের সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার শাহজাদা এম আকরাম।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

টিআইবি গত বছরের জুলাই থেকে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ের তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণ করেছে। তথ্য সংগ্রহের জন্য ই-জিপি বাস্তবায়নকারী প্রথম দিকের চারটি প্রতিষ্ঠান—স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি), সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ), বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) এবং বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডকে (আরইবি) বাছাই করা হয়। চার প্রতিষ্ঠানের ৫২টি কার্যালয় থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।
প্রতিবেদন অনুযায়ী, ই-জিপি প্রবর্তনের ফলে সরকারি ক্রয় প্রক্রিয়া সহজতর হলেও নানা ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতি রয়ে গেছে। কিছু কিছু এলাকায় কোনো বিশেষ কাজে কারা দরপত্র জমা দেবে, সেটা রাজনৈতিক নেতা, বিশেষ করে স্থানীয় সংসদ সদস্য ঠিক করে দেন। অনেক ক্ষেত্রে একটি বড় লাইসেন্সের অধীনে কাজ নিয়ে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা–কর্মীদের মধ্যে বণ্টন করে দেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

টিআইবি বলছে, দরপত্র মূল্যায়নের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অবহেলা, নিজেরা কাজ না করে কম্পিউটার অপারেটরদের মাধ্যমে মূল্যায়ন প্রতিবেদন প্রস্তুত, নম্বর বাড়িয়ে-কমিয়ে আনুকূল্য দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া ঠিকাদারদের রেট শিডিউল জানিয়ে দেওয়া এবং কাজ তদারকি, অগ্রগতি প্রতিবেদনে ভুল তথ্য প্রদান এবং কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর বিল দেওয়ার সময়ে ঘুষ আদায় করার অভিযোগ রয়েছে।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘ই-জিপির ফলে ক্ষেত্রবিশেষে প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধি পেলেও দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ ও কাজের মানোন্নয়নে কোনো প্রভাবই পড়েনি। ই-জিপির ব্যবস্থাপনা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির ঘাটতি রয়েছে। এর পেছনে মূলত রাজনৈতিক প্রভাব বড় ভূমিকা পালন করছে।’

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক আরও বলেন, ই-জিপিকে রাজনৈতিক প্রভাব, যোগসাজশ ও সিন্ডিকেটের দুষ্টচক্র থেকে মুক্ত করতে সব পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি এবং জনগুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে অধিষ্ঠিত ব্যক্তির সঙ্গে রাষ্ট্রের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ব্যবসায়িক সম্পর্কের সুযোগ বন্ধ করতে হবে। সেই সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সম্পদের বিবরণ প্রকাশ করতে হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন