বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘করোনার শুরু থেকে ব্যাংকের সব ধরনের সেবা চালু ছিল। বাসা থেকে সব ধরনের সেবা দিয়েছেন আমাদের কর্মীরা। আমাদের এমন কিছু সেবা রয়েছে, যা অন্যদের চেয়ে ভালো। তবে ব্যাংকের আর্থিক হিসাবে কিছুটা ঘাটতি ছিল, তা ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে।’

এমটিবির এমডি আরও বলেন, ‘৫০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা ঋণ দিতে আমরা মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোন, রবি, অনলাইন সেবা প্ল্যাটফর্ম সেবা এক্সওয়াইজেডের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। এটা সম্ভব হলে একেবারে প্রান্তিক পর্যায়ে আমাদের সেবা পৌঁছে যাবে। তাদের মাধ্যমে ঋণ আদায়ও সহজ হবে। এমন অংশীদার ছাড়া নতুন নতুন সেবা ছড়িয়ে দেওয়া সম্ভব নয়।’

ঢাকার বাংলামোটরের এমটিবি টাওয়ারের স্যামসন এইচ চৌধুরী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন এমটিবির অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক চৌধুরী আখতার আসিফ, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক গৌতম প্রসাদ দাস, তারেক রিয়াজ খানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন