বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) সভাপতি জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এই দাবি জানায়।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘ব্যবসায়ীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিশেষ সুবিধা পাওয়া বড় উদ্যোক্তাদের ঋণের কিস্তির ১৫ শতাংশ জমা দিলে খেলাপি না করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ ব্যাপারে শিগগিরই প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। শুধু ২০২১ সালের জন্য এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। তবে সবাই সুযোগটি পাবেন না।’
এর আগে কুটির, অতি ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তাদের (সিএমএসএমই) নেওয়া ঋণের কিস্তির ১৫ শতাংশ অর্থ জমা দিলে ঋণ নিয়মিত রাখার সুযোগ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।

গভর্নরের সঙ্গে বৈঠক সম্পর্কে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) এক বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, অমিক্রন ভেরিয়েন্ট বা ধরনের সম্ভাব্য প্রভাবের নতুন শঙ্কা বিবেচনায় রেখে বাংলাদেশ ব্যাংককে সহায়তামূলক আর্থিক নীতি অব্যাহত রাখতে অনুরোধ করেছেন বিজিএমই সভাপতি ফারুক হাসান। বিশেষ করে ঋণ স্থগিত সুবিধার সম্প্রসারণ অব্যাহত রাখার কথা বলেন তিনি। কারণ, ব্যবসা এখনো আগের অবস্থানে ফিরে আসেনি।

গভর্নরের সঙ্গে আলোচনায় ফারুক হাসান বলেন, ‘সরকারের সময়োপযোগী নীতি–সহায়তা, বিশেষ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা এবং সেই সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহায়তামূলক নীতিগত উদ্যোগগুলো শিল্প খাতকে কোভিড-১৯–এর ভয়াবহ প্রভাব থেকে পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে সহায়তা করেছে। এতে দেশের অর্থনীতি ও মানুষের জীবন–জীবিকা রক্ষা পেয়েছে। অর্থনৈতিক কার্যক্রম এখনো পুরোপুরি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসেনি, অনেক ব্যবসায়ী ঋণ পরিশোধ করার সক্ষমতা ফিরে পাননি। বিশ্ববাজারে শিল্পের কাঁচামালের মূল্য ও জাহাজভাড়া বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের প্রধান রপ্তানিশিল্পে প্রভাব পড়েছে। তা ছাড়া ব্যবসা যখন ফিরে আসার পথে রয়েছে, তখন আবার নতুন করে অমিক্রন ভেরিয়েন্ট রপ্তানিকারকদের মধ্যে উৎকণ্ঠার সৃষ্টি করছে।’

রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন এ নিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা আবাসন খাতে পুনঃ অর্থায়ন ঋণ চেয়েছি। কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানিয়েছে, এ নিয়ে কাজ চলছে। বিদেশি উৎস থেকে অর্থায়ন পেলে চালু করা হবে।’

গভর্নরের সঙ্গে ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এ কে এম সাজেদুর রহমান খান ও আবু ফরাহ মো. নাছের এবং বাংলাদেশ নিটওয়্যার প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিকেএমইএ) সভাপতি এ কে এম সেলিম ওসমান, রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন, বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজের (বিসিআই) সভাপতি আনোয়ার-উল-আলম চৌধুরী, মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এমসিসিআই) জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি কামরান রহমান প্রমুখ।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন