বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিদেশি ব্যাংকগুলোতে দিন দিন নারী কর্মী কমছে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে যেখানে বিদেশি ব্যাংকগুলোতে নারী কর্মী ছিল ১ হাজার ৯৪ জন, সেখানে ২০২০ সালের জুনে তা কমে ৯৭৮ জন এবং ডিসেম্বরে ৯৪৮ জনে নেমে আসে। আর এ বছরের জুনে আরও কমে হয় ৯৪০ জন।

তবে সার্বিকভাবে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ব্যাংক খাতে নারী কর্মী ছিল ২৮ হাজার ৪৮০ জন, যা ২০২০ সালের জুনে কমে ২৮ হাজার ৭৮ জন হয়। ওই বছরের ডিসেম্বরে নারী কর্মী কিছুটা বেড়ে হয় ২৮ হাজার ৩৭৮ জন, যা এ বছরের জুনে আরও বেড়ে হয় ২৯ হাজার ৫১৩ জন।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের জুন মাসের শেষে ব্যাংকগুলোতে মোট কর্মীসংখ্যা ছিল ১ লাখ ৮৬ হাজার ৭৮৪। এর মধ্যে নারী কর্মী ২৯ হাজার ৫১৩ এবং পুরুষ কর্মী ১ লাখ ৫৭ হাজার ২৭১ জন। গত জুন শেষে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংকগুলোতে নারী কর্মী ছিল ৮ হাজার ২৩ জন এবং পুরুষ কর্মী ছিল ৪২ হাজার ৫৪৪ জন। বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোতে নারী কর্মী ১ হাজার ৮২৮ জন ও পুরুষ কর্মী ১১ হাজার ৪৭৭ জন ছিল। বেসরকারি খাতের ব্যাংকগুলোতে নারী কর্মীর সংখ্যা ১৮ হাজার ৭২২ জন এবং পুরুষ কর্মী ১ লাখ ৩৯৫ জন।

আর বিদেশি ব্যাংকগুলোতে নারী কর্মী ৯৪০ জন এবং পুরুষ কর্মী ১ হাজার ৮৫৫ জন। বিদেশি ব্যাংকগুলোতেই নারী কর্মীর হার সর্বোচ্চ, প্রায় ২৫ শতাংশ।

বর্তমানে সরকারি খাতের ব্যাংকগুলোর নিয়োগপ্রক্রিয়া পুরোপুরি বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণে। আর বেসরকারি ও বিদেশি খাতের ব্যাংকগুলো নিজেদের নীতিমালা অনুযায়ী নিয়োগ দিয়ে থাকে।

বিভিন্ন ব্যাংকের মানবসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, ২০২০ সালে নিয়োগ একরকম বন্ধ ছিল। চলতি ২০২১ সালে আবার নিয়োগ শুরু হয়।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন