বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঋণ চুক্তি সম্পর্কে ডিবিএল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ জব্বার বলেন, ‘ব্যবসার উন্নয়নে নারী নেতৃত্বকে উৎসাহিত করা প্রয়োজন। নারী তত্ত্বাবধায়কদের কাজের দক্ষতা ও পারদর্শিতায় কর্মক্ষেত্রে আমরা লক্ষণীয় পরিবর্তন দেখতে পারছি। কর্মক্ষেত্রে নারী নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে এইচএসবিসির মতো বৈশ্বিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অংশীদারত্ব পেয়ে আমরা উৎসাহিত।’

এ প্রসঙ্গে এইচএসবিসি বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহবুব উর রহমান বলেন, ‘আমরা আমাদের গ্রাহকদের টেকসই লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করতে বদ্ধপরিকর। যা কিনা পরিবেশগত, সামাজিক অথবা নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত হতে পারে। আমাদের গ্রাহকেরা যখন নতুন টেকসই অর্থনীতিতে এগিয়ে যেতে শুরু করেছে, তখন আমরা বিশ্বব্যাপী দক্ষতা ও সেবা প্রদানের মাধ্যমে সর্বদা তাঁদের পাশে আছি। আমরা ডিবিএল গ্রুপকে কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষ সমতাকে অগ্রাধিকার এবং গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ হ্রাসের মতো দুটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে অগ্রগামী হওয়ায় ধন্যবাদ জানাই।’

এইচএসবিসি বাংলাদেশের কান্ট্রি হেড অব হোলসেল ব্যাংকিং কেভিন গ্রিন বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো টেকসই ব্যবসায়িক মডেলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। আমরা এ ক্ষেত্রে ডিবিএল গ্রুপকে পাশে পেয়ে আনন্দিত।
এইচএসবিসি তাদের গ্রাহকদের কার্বন নিঃসরণ হ্রাস এবং ভবিষ্যৎ টেকসই ব্যবসায় রূপান্তরে সহায়তা করতে ‘প্ল্যান ফর দ্য প্ল্যানেট’ বাস্তবায়ন করেছে। গ্রাহকদের টেকসই ভবিষ্যতের লক্ষ্যে এইচএসবিসি ২০৩০ সাল নাগাদ ৭৫ হাজার কোটি ডলার থেকে ১ লাখ কোটি ডলার পর্যন্ত সাসটেইনেবল ফাইন্যান্স খাতে বিনিয়োগ করতে প্রস্তুত।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন