বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সভায় মূলত দুটি বিষয়ে আলোচনা হবে। প্রথমটি হলো, নগদ পরিচালনায় নতুন করে ‘নগদ সার্ভিসেস পিএলসি’ নামে পৃথক কোম্পানি গঠন করা। আরেকটি হলো, এর মালিকানার ৫১ শতাংশ থাকবে ডাক অধিদপ্তরের অধীনে ও ৪৯ শতাংশ বেসরকারি উদ্যোক্তাদের হাতে।

এর আগেও নগদের মালিকানা নির্ধারণ নিয়ে আন্তমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ডাক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. সিরাজ উদ্দিন বলেন, আজকের সভায় নগদের মালিকানা নির্ধারণসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হবে।

জানা গেছে, আজ বেলা ১১টায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে অনুষ্ঠেয় সভায় নগদের মালিকানা নির্ধারণের বিষয়ে অগ্রগতি ও পরবর্তী করণীয় নিয়ে আলোচনা হবে। এ ছাড়া নগদকে মোবাইলে আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বা এমএফএস হিসেবে অনুমোদন দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া শর্ত নিয়েও আলোচনা হবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক শর্ত দিয়েছে, নগদ গ্রাহকের জমার বিপরীতে যে ঋণ নিয়েছে, তা সমন্বয় করতে হবে।

সূত্র জানায়, গ্রাহকের ওয়ালেটে থাকা টাকা বিভিন্ন ব্যাংকে জমা রেখেছে নগদ। এর বিপরীতে ৫০০ কোটি টাকা ঋণ নেয়। ঋণের স্থিতি এখন ৩২৮ কোটি টাকা। যদিও গ্রাহকের টাকা খরচ করার বা এর বিপরীতে ঋণ নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

এদিকে সম্প্রতি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান সিরাজগঞ্জ শপের বিরুদ্ধে ৪৭ কোটি হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে মামলা করেছে নগদ।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন