বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ব্যাংকটির প্রধান কার্যালয়ের নিচেই গুলশান শাখা। এমন একটি শাখায় যখন এই ঘটনা, তখন বুঝতে হবে প্রধান কার্যালয়ও বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত ছিল। তাই বিষয়টিকে হালকাভাবে দেখলে হবে না।

ইউনিয়ন ব্যাংক প্রচলিত ধারার চতুর্থ প্রজন্মের একটি ব্যাংক। ব্যাংকটি কিছুদিন আগে ইসলামি ধারায় রূপান্তর করা হলো। তাহলে ইসলামি ব্যাংকিং ব্যবস্থার নীতিনৈতিকতা কোথায় গেল, এটা বড় প্রশ্ন।

আগে ভুয়া ঋণ, ভুয়া ঋণপত্রের মাধ্যমে টাকা বের করার ঘটনা অনেক শোনা গেছে, কিন্তু ভল্ট খালি করে ফেলার কথা শোনা যায়নি।

এটা মনে রাখতে হবে, চোর ধরতে গিয়ে নিরপরাধ কেউ যেন শাস্তি না পায়। খুঁজে বের করতে হবে প্রকৃত দোষী ব্যক্তিদের।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন