আমাদের সুস্থতার প্রয়োজনে তাঁরাই হয়ে ওঠেন প্রিয়জনের চেয়েও অতিপ্রিয়জন! নিজেদের আয়েশের চেয়ে রোগীদের আরামই তাঁদের কাছে মুখ্য। ফলে সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত তাঁদের নিরন্তর চেষ্টা থাকে আমাদের সুস্থতা নিশ্চিত করা। এই সাদা কাপড়ের সুপারহিরো, অর্থাৎ নার্সদের সব সময় থাকতে হয়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। পরনের পোশাকই পরিচয় দেয় তাঁদের অন্তরের শুভ্রতার।

সুধা রানী বিশ্বাসের মুখেই শোনা যাক, তাঁরা কীভাবে থাকেন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও ইনফেকশনমুক্ত—‘হাসপাতাল মানেই নানা ধরনের রোগী। বিভিন্ন ধরনের জীবাণুর আনাগোনা। এর ফলে হতে পারে ইনফেকশন। তাই ইনফেকশন থেকে রক্ষা পেতে, বিশেষ করে আমাদের কাছ থেকে রোগীর যেন ক্ষতি না হয়, সেজন্য আমরা পরনের পোশাক সব সময় পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন রাখি। তাতে মনও প্রফুল্ল থাকে। আন্তরিকভাবে করতে পারি রোগীদের সেবা।’

default-image

করোনাকালের আগে সুধা রানী বিশ্বাসরা সপ্তাহে একবার করে ড্রেস বাসায় নিয়ে পরিষ্কার করতেন। ডিটারজেন্ট পাউডার দিয়ে ধুয়ে ইস্ত্রি করে পোশাক পরতেন তাঁরা। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে বদলে গেছে পুরো পৃথিবী। বদলে গেছে নার্সদের পোশাক পরিষ্কারের ধরনও। সেটা কেমন? জানালেন সুধা রানী বিশ্বাস, ‘করোনা আসার পর প্রতিদিন আমরা কর্মস্থল থেকে বাসায় গিয়ে ড্রেস ডিটারজেন্টে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে, তারপর পরিষ্কার করি।’

সুধা রানী বিশ্বাসের মতো সাদা কাপড় যাঁদের অনুপ্রেরণা জোগায়, ক্লান্তিহীন সেবাদানের জন্য জোগায় শক্তি আর সাহস, সুপার হোয়াইট নিবেদিত প্রথম আলোর আয়োজনে সেই সাদা কাপড়ের সুপারহিরোদের প্রতি সশ্রদ্ধ স্যালুট।

করপোরেট সংবাদ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন