default-image

কর্মপদ্ধতি: এসএফবির দপ্তরে কর্মরত ছয়জন কর্মী সদস্যের একটি দল তহবিলের সুষ্ঠু ও যথার্থ ব্যবহার পর্যবেক্ষণ করে। এ ছাড়া সমন্বয় সাধন, সদস্য এনজিওসহ অন্যান্য সহযোগীদের প্রশিক্ষণ ও উদ্ভাবনী কৌশল বাড়ানো ও সদস্যদের উন্নয়নে এই দল কাজ করে থাকে। পূর্ব সতর্কতা প্রদান ও তদনুযায়ী তহবিল থেকে সাহায্য প্রদানের ক্ষমতা দপ্তরের পরিবর্তে সদস্যদের হাতে থাকে। এসএফবির নিবন্ধন ও দপ্তর পরিচালনা রয়েছে ‘অ্যাকশন অ্যাগেইনস্ট হাঙ্গার’; এটি স্টার্ট নেটওয়ার্কেরই সদস্য প্রতিষ্ঠান।

অ্যালার্ট সাইকেল: এটি আসলে দুর্যোগ মোকাবিলার কর্মপদ্ধতি। শুরুটা হয় সংকট চিহ্নিত করার মধ্যে দিয়ে। কোনো সদস্য প্রতিষ্ঠান কিংবা গ্রুপ সেটা করে থাকে। জরুরি আর্থিক সহায়তা প্রদানের বিষয়টি এরাই অবগত করে। এরপর স্টার্ট ফান্ডের নীতিমালা অনুসরণ করে, আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়। এ ক্ষেত্রে স্টার্ট নেটওয়ার্কের সব সদস্যকেই বাধ্যতামূলকভাবে এই চুক্তিপত্রের নিয়মাবলি মানতে হয়।

default-image

আর্থিক মূল্যমান: অফিস স্পেস ও অফিস পরিচালনায় নানা ধরনের সহায়তা (যেমন: মানবসম্পদ, অর্থ, প্রশাসনসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা) এসএফবিকে প্রদান করে পরিচালন ব্যয় হ্রাসে সাহায্য করে অ্যাকশন অ্যাগেইনস্ট হাঙ্গার।
*প্রতিটি এনজিওরই স্থানীয় ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট আছে। তহবিল অনুমোদনের ঘণ্টাখানেক মধ্যেই সেই অর্থ তাদের অ্যাকাউন্টে জমা হয়ে যায়। এতে করে সময় সাশ্রয়ের পাশাপাশি সংকট মোকাবিলায় গৃহীত পদক্ষেপের দ্রুত বাস্তবায়নও হয়ে থাকে।
*অর্থ বরাদ্দের সিদ্ধান্ত গ্রহণে কালক্ষেপণ করে না এসএফবি। ফলে অনুমোদিত সদস্য এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে সহায়তা প্রদানের প্রক্রিয়া দ্রুত বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়।

বিজ্ঞাপন

স্থিতিশীলতা: দুর্যোগের আগাম সতর্কবার্তা পাওয়ার ফলে কোনো মানবিক সংকট সৃষ্টির পূর্বেই সেই অনুযায়ী আগাম ব্যবস্থা গ্রহণ করে প্রোটোকল অনুযায়ী পর্যাপ্ত অর্থসহায়তা পৌঁছে দেওয়া হয়। এসএফবি তার ফোরওয়ার্ন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে সংকটের গতি প্রকৃতি ও মাত্রা সম্বন্ধে সদস্য সংস্থাগুলোকে অবগত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারে। ফলে কোনো নির্দিষ্ট গোষ্ঠীকেন্দ্রিক সংকট মোকাবিলায় পূর্বের তুলনায় আরও ভালোভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ করা সম্ভব হয় ও কমিউনিটিকে প্রস্তুত রাখা যায়। এ ছাড়া স্থানীয় ও জাতীয় এনজিওগুলো কমিউনিটিকে বেশি সময় দেয় ও সংকট পরবর্তী সময়েও সহায়তা প্রদান করতে সক্ষম হয়।

কমিউনিটির সহনশীলতা বৃদ্ধি: সংকট মোকাবিলায় সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণের ক্ষেত্রে অর্থায়নের ঝুঁকির সঙ্গে পূর্বানুমানকে গুরুত্ব দিয়ে আগে থেকে তৈরি থাকাটাই শ্রেয়। তা ছাড়া অর্থ সহায়তার সম্ভাব্য খাতগুলো আগে থেকে চিহ্নিত থাকলে যথাসময়ে প্রয়োজনীয় নিয়ম অনুসরণ করে তা বিতরণ সহজতর হয়। এ ছাড়া জাতীয় ফোরওয়ার্ন প্ল্যাটফর্ম ও প্রি-ক্রাইজ ডেটা রিপোজিটরি টুলের মাধ্যমে সদস্য সংস্থাগুলোকে ঝুঁকির স্বরূপ অনুধাবন করতে সক্ষম হয় এসএফবি। এতে করে সময়মতো ও নির্ভরযোগ্যভাবে প্রয়োজন অনুযায়ী অর্থ সহায়তা প্রদান সম্ভব হয়। এই পদ্ধতি অনুসরণ করে বিভিন্ন সম্প্রদায় আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমিয়ে আনতে পারে। তা ছাড়া পরিস্থিতি মোকাবিলায় নেতিবাচক দিকগুলো এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হয়। উপরন্তু, স্থানীয় ও জাতীয় প্রতিষ্ঠানগুলো শুরু থেকে প্রকল্প শেষ না হওয়া পর্যন্ত এসব সম্প্রদায়ের সঙ্গে কাজ করে থাকে। ফলে আগে যেমন, তেমনি এবং সংকট সমাধানের পরেও তারা এদের পাশে থাকতে পারে।

default-image

দক্ষতা বৃদ্ধি: প্রতিটি সদস্য সংস্থার প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন, শ্রমশীলতা, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, প্রশাসন, জবাবদিহি এবং সুরক্ষার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সহায়তা দিয়ে থাকে এসবিএফ। তা ছাড়া বেশিরভাগ স্থানীয় ও জাতীয় সদস্য সংস্থা সরাসরি অর্থ পেয়ে থাকে বলে এফএফবির প্রধান কার্যালয় থেকে আর্থিক ব্যবস্থাপনা, কেনাকাটা ও অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির ওপর তাদের নিয়মিত প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়। পাশাপাশি সম্প্রদায়গুলোর সামর্থ্য বৃদ্ধির জন্য এসএফবি তাদের সমন্বয় কার্যক্রমের অংশ হিসাবে নিয়মিতভাবে চাহিদা বিশ্লেষণ ও রিয়েল টাইম তথ্য সরবরাহ করে থাকে।

ভবিষ্যৎ তহবিল গঠন: এসএফবি তার কর্মদক্ষতা এবং কোনো সংকট মোকাবিলার সফল উদাহরণ সামনে রেখে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক দাতা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে ভবিষ্যৎ তহবিল গঠনের কাজ করে থাকে। এখনো পর্যন্ত এসএফবির মূল দাতা সংস্থা হলো এফসিডিও। তবে স্থানীয় দাতা গোষ্ঠী গড়ে তুলতে নতুন দ্বিপক্ষীয় ও বহু পাক্ষিক দাতাদের পাশাপাশি ব্যক্তি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে দাতার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে চায়। দাতার সংখ্যাবৃদ্ধি পেলে এসএফবির পক্ষে জাতীয় পর্যায়ে আরও বিস্তৃত পরিসরে কাজ করা সম্ভব হবে। তা ছাড়া আরও দ্রুততার সঙ্গে ও সহজে পরিস্থিতি মোকাবিলা সম্ভব হবে এবং তাতে করে লেনদেনর ব্যয়ও হ্রাস পাবে।

প্রতিরূপ: এসএফবি তার প্রক্রিয়াগত কর্মকাণ্ড, সংকট মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব, উচ্চতর দক্ষতা ও ভূমিকায় সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছে। ফলে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এই উদ্যোগ বিশেষ স্বীকৃতি অর্জন করেছে।

বিজ্ঞাপন
করপোরেট সংবাদ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন