২০১৯ সালের ৪ নভেম্বর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছিলেন, কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যাতে বারবার কাজ না পায়। নতুন ঠিকাদারদের কাজের সুযোগ দিতে প্রয়োজনে সরকারি ক্রয় বিধিমালা সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে ক্রয় বিধিমালা সংশোধন করতে অর্থসচিব আবদুর রউফ তালুকদারকে প্রধান করে সাত সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটি বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে বেশ কিছু প্রস্তাব তুলে ধরেছে।

কমিটির সদস্য ও সরকারি কেনাকাটাবিষয়ক নিয়ন্ত্রক সংস্থা সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের (সিপিটিইউ) মহাপরিচালক শোহেলের রহমান চৌধুরী বলেন, ক্রয় বিধিমালা সংশোধনের কাজ চলছে। তবে এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

সিপিটিইউর তথ্য অনুযায়ী, পূর্ত কাজে জাতীয় দরপত্রে ১০ শতাংশ মূল্যসীমা নির্ধারণ করে দেওয়ায় একই ঠিকাদার বারবার কাজ পেয়ে যাচ্ছেন। ক্রয় আইনের ৩১ নম্বর ধারার ৩ উপধারায় বলা আছে, ‘উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে অভ্যন্তরীণ কাজে ক্রয়ের ক্ষেত্রে কোনো দরপত্রদাতা দরপত্রে দাপ্তরিক প্রাক্কলিত ব্যয় ১০ শতাংশের কম বা বেশি দর দিলে ওই দরপত্র বাতিল হয়ে যাবে।’

পূর্ত কাজে জাতীয় দরপত্রে ১০ শতাংশ মূল্যসীমা জরুরি ভিত্তিতে তুলে দেওয়া উচিত। আইনে এই শর্ত থাকার কারণে দরপত্র আহ্বানকারী সরকারি দপ্তরের গোপন তথ্য ফাঁস হয়ে যাচ্ছে।
ফারুক হোসেন, সাবেক মহাপরিচালক, সিপিটিইউ

উদাহরণ দিয়ে সিপিটিউর এক কর্মকর্তা বলেন, কোনো একটি পূর্ত কাজের জন্য যদি ১০০ টাকার দরপত্র আহ্বান করা হয়, সেই কাজে ঠিকাদারকে সর্বোচ্চ ১১০ টাকা এবং সর্বনিম্ন ৯০ টাকার মধ্যে মূল্য দিতে হবে। ১০ শতাংশের বেশি বা কম মূল্য দিলে ওই ঠিকাদারের দরপত্র বাতিল হয়ে যাবে।

আইনের এই শর্তের কারণে এখন ঠিকাদারেরা দরপত্র আহ্বানকারী সংস্থার কর্মকর্তার সঙ্গে আঁতাত করে গোপনীয় প্রাক্কলিত ব্যয়ের তথ্য সংগ্রহ করে ফেলেন। গোপনে প্রাক্কলিত ব্যয় সংগ্রহ করে ১০ শতাংশ কমবেশির মূল্যসীমার মধ্যেই দরপত্র দাখিল করেন। এতে অনেক ঠিকাদারের দেওয়া ব্যয়ের সঙ্গে প্রাক্কলিত ব্যয় প্রায় মিলে যায়। তখন ঠিকাদারদের মধ্যে যাঁর বার্ষিক লেনদেন (টার্নওভার) বেশি, তাঁদের কাজ দেওয়া হয়। আইনের এই ফাঁকফোকরের মধ্য দিয়ে বড় ঠিকাদারেরা কাজ পেয়ে যাচ্ছেন।

সিপিটিইউর সাবেক মহাপরিচালক ফারুক হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, পূর্ত কাজে জাতীয় দরপত্রে ১০ শতাংশ মূল্যসীমা জরুরি ভিত্তিতে তুলে দেওয়া উচিত। আইনে এই শর্ত থাকার কারণে দরপত্র আহ্বানকারী সরকারি দপ্তরের গোপন তথ্য ফাঁস হয়ে যাচ্ছে। তা ছাড়া পৃথিবীর কোথাও এই পদ্ধতি নেই। মূল্যসীমা বেঁধে দেওয়া হলে সেটা উন্মুক্ত দরপত্র (ওটিএম) বলা হচ্ছে কেন?

এদিকে আইন সংশোধনে গঠিত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সার্বিকভাবে উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে ১০ শতাংশ কমবেশি মূল্যসীমার নেতিবাচক প্রভাবই বেশি। এ বিষয়ে সরকারের নির্দেশনা দরকার। কমিটি তাদের প্রস্তাব সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির কাছে হস্তান্তর করবে। যে কমিটির প্রধান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। কমিটির প্রস্তাবে আরও বলা হয়েছে, ২০ কোটি টাকা পর্যন্ত যেকোনো কাজে অংশগ্রহণের সুযোগ শুধু দেশীয় দরদাতাদের জন্য উন্মুক্ত রাখার এবং অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে পণ্য ও সেবা সংগ্রহের সুযোগ থাকলে সে ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক দরপত্র পরিহারের।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন