বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বর্তমানে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ৪১ হাজার ১০০ কোটি ডলার বলেও উল্লেখ করেন অর্থমন্ত্রী। ডলারকে টাকায় হিসাব করলে তা দাঁড়ায় ৩৫ লাখ ৩৪ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। অর্থমন্ত্রীর দেওয়া দুই অঙ্কের একটি থেকে আরেকটি বিয়োগ করলে আগামী অর্থবছরে অর্থনীতির আকার বাড়বে ৭ লাখ ৬৫ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। এক বছরের ব্যবধানে অর্থনীতিতে প্রায় পৌনে আট লাখ কোটি টাকা কীভাবে যোগ হবে, তার কোনো ব্যাখ্যা অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে নেই।

তবে সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ নিজের মতো করে অর্থনীতির আকার নিয়ে প্রক্ষেপণ করেছে, যা উপস্থাপিত হয়েছে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত রাজস্ব সমন্বয় কাউন্সিলের এক বৈঠকে। ওই বৈঠকের তথ্যই আজ তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী।

বাংলাদেশ ২০৪১ সালে উন্নত দেশে পরিণত হবে, অনুষ্ঠানে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে অর্থমন্ত্রী বলেন, এলডিসি থেকে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশের কাতারে যাচ্ছে। বাংলাদেশ এই মাইলফলক স্পর্শ করছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। তাঁর নেতৃত্বে অর্থনীতির সব খাতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে বাংলাদেশ আজ সারা বিশ্বেই প্রশংসিত।

বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ১০ হাজার কোটি ডলার হতে ১৯ বছর লেগেছে বলে দাবি করেন মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, আগামী অর্থবছরে দেশের অর্থনীতির আকার হবে ৫০ হাজার কোটি ডলার, যা বর্তমানে ৪১ হাজার ১০০ কোটি ডলার। এ ছাড়া মাথাপিছু আয় এখন ২ হাজার ৫৫৪ ডলার।

অর্থনীতির আকারের পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নিয়েও উচ্চাশা পোষণ করেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বিশ্বাস করেন, চলতি বছর শেষ নাগাদ রিজার্ভ ৫ হাজার কোটি ডলারে পৌঁছাবে, বর্তমানে যা ৪ হাজার ৫০০ থেকে ৪ হাজার ৬০০ কোটি ডলারের কাছাকাছি।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন