বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ডব্লিউটিওর কাছে এলডিসি থেকে উত্তরণের পর আগামী ১২ বছর এলডিসিভুক্ত দেশগুলো যে সুবিধা পায়, বাংলাদেশ একই সুবিধা পাওয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। এ জন্য ইইউ বাংলাদেশের পক্ষে সহযোগিতা করবে বলে আশা করছেন তিনি। এ ছাড়া এলডিসি থেকে উত্তরণের পর রপ্তানি বাণিজ্যেসুবিধা আদায় ও দর-কষাকষির ক্ষেত্রে দক্ষতা বৃদ্ধিতে ইইউর সহযোগিতা প্রয়োজন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের তৈরি পোশাকশিল্প এখন একটি শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে আছে। করোনা মহামারির কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকার এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ব্যাপক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

শ্রমিকদের বেতন দিতে সরকার প্রণোদনা প্যাকেজের মাধ্যমে সহযোগিতা দিয়েছে জানিয়ে টিপু মুনশি বলেন, কোভিড-১৯–এর কঠিন সময়েও বাংলাদেশ অর্থনীতির চাকা সচল রাখার চেষ্টা করেছে। সরকার ও তৈরি পোশাকশিল্পের মালিকদের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও সহযোগিতায় করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যবস্থা করেছে। এ কারণে শ্রমিকদের ওপর তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশের পোশাকশিল্প বিগত যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক বেশি নিরাপদ ও কর্মবান্ধব। কারখানায় শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে, শ্রমিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এখন কারখানার মালিক ও শ্রমিকেরা খুশি।

ইইউর বিদায়ী রাষ্ট্রদূত রিনসজে টেরিংক বলেন, বাংলাদেশ ইইউর গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য অংশীদার। বাণিজ্যক্ষেত্রে ইইউ বাংলাদেশকে বেশ গুরুত্ব দিয়ে থাকে। বাংলাদেশকে দেওয়া ইইউর বাণিজ্যসুবিধা অব্যাহত থাকবে। বাংলাদেশ দক্ষতার সঙ্গে সফলভাবেই কোভিড-১৯ মোকাবিলা করেছে। বাংলাদেশে চার বছর দায়িত্ব পালনে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশ একটি চমৎকার ও সম্ভাবনাময় দেশ। ভবিষ্যতেও ইইউ বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন